DBC News
নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের অভাবে মৃত্যু হচ্ছে অনেক শিশুর

নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের অভাবে মৃত্যু হচ্ছে অনেক শিশুর

নবজাতক নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র বা এনআইসিইউতে বেড সংকটের কারণে দেশে প্রতিদিন অনেক শিশুর মৃত্যু হচ্ছে। রাজধানীর বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে এই বেডের সংকট তীব্র।

একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের গাড়ি চালক সালাউদ্দিন। বছর দুয়েক আগে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই তার সন্তান জন্ম নেয়। নবজাতককে বাঁচানোর জন্য নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র দরকার হলেও ওই সময় কোন হাসপাতালে সিট পাওয়া যায়নি।

সালাউদ্দিন বলেন, 'আমার প্রথম বাচ্চা মারা গেছে, দ্বিতীয়টির জন্যও এনআইসিইউ দরকার হয়েছে। সরকারি হাসপাতালগুলোতে অনেক দৌড়াদৌড়ি করেছি, কোনও সিট না পাওয়াতে প্রাইভেট হাসপাতালে নিতে নিতে আমার আগের বাচ্চাটা মারা যায়। একবছর পর আমার আরেকটা বাচ্ছা হয়। এটাও নির্ধারিত সময়ের আগে আট মাসে হয়। সরকারিতে সিট না পাওয়াতে আমার আবার প্রাইভেট হাসপাতালে এনআইসিইউতে রাখতে হয়েছিল। এইজন্য আমার অনেক টাকা খরচ হয়েছিল।‘

২০১৪ সালের বাংলাদেশ ডেমোগ্রাফিক অ্যান্ড হেলথ সার্ভে তথ্য অনুযায়ী, দেশে জীবিত জন্ম নেয়া এক হাজার শিশুর ২৮ জন মারা যায়। তবে চিকিৎসকরা বলছেন, এ সংখ্যা আরও বেশি; এর বড় কারণ, নির্দিষ্ট সময়ের আগেই শিশুর জন্ম কিংবা কম ওজন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল বিএসএমএমইউ এর সহযোগী অধ্যাপক (নবজাতক বিভাগ) ডা.সঞ্জয় কুমার দে. বলেন, ‘অপরিপুষ্ট বাচ্চাগুলো সাধারণত হাইপোথারমিয়াতে ভোগে। তারা তাদের তাপমাত্রা রক্ষণাবেক্ষণ করতে পারে না। তাদের প্রত্যেকটি অঙ্গ অপরিপুষ্ট থাকে। যেমন ব্রেইন, হার্ট, চোখ, লাংস ইত্যাদি অপরিপুষ্ট থাকে। তাদের যে সমস্যাটা হয়, সেটা হল প্রথম জন্মের পর আমরা দেখি তাদের শ্বাস কষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।’

এসব শিশুর জন্য দরকার নবজাতক নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এনআইসিইউতে বেড ৩৬টি, 'বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩১টি এবং শিশু হাসপাতালে মাত্র ৮টি। চাহিদা দশগুণ বলে ছুটতে হয় বিভিন্ন ক্লিনিকে। আর যাদের সে সামর্থ্যও নেই তাদের পড়তে হয় বিপাকে।' 

জাতীয় শিশু হাসপাতালের পরিচালক ডা. মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ বলেন, ‘প্রতিদিন দেখা যাচ্ছে যে ৩০টা থেকে ৩৫টা রোগী সিরিয়ালে থাকে। একটা রোগীর ছুটি না হলে আমরা ভর্তি করতে পারি না। এই সমস্যাটা আমাদের সবচেয়ে প্রকট।’

রাজধানীর বাইরে এনআইসিইউ'র সংকট আরও বেশি। দেশে শিশুমৃত্যুর হার কমাতে হলে সরকারি হাসপাতালে এনআইসিইউ বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

আরও পড়ুন

ব্যারিস্টার মঈনুলকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান

সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে 'চরিত্রহীন' বলায় ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেনেকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন আরও ১৪ জন বিশিষ্ট নাগরিক। শুক...

১৭৭ রোহিঙ্গা পুনর্বাসিত, দাবি মিয়ানমারের

১৭৭ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের যে দাবি করেছে মিয়ানমার, সে বিষয়ে বাংলাদেশকে কিছুই জানানো হয়নি। এমনটি জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। শুক্রবার টেলিফোনে...

৮ জনে ১ জন নারী স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকিতে

দেশে প্রতি ৮ জনে ১ জন নারী স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হবার ঝুকিঁতে আছেন। আর প্রতিবছর ৭ হাজার ২শ' নারী স্তন ক্যান্সারের কারণে মারা যাচ্ছেন। সচেতনতা তৈরিই এই রোগের...

মানসিক স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষ্যে সাইকেল র‌্যালি

বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সাইকিয়াট্রিস্টস এবং জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল এর উদ্যোগে সাইকেল র‌্যালি অ...

১৪ই জুলাই ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে

আগামী ১৪ই জুলাই ছয় থেকে ৫৯ মাস বয়সী তিন লাখ শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।  সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত দেশব্যাপী এ কর্মসূচি পালন করা হবে।সচিবা...

ইটভাটা শ্রমিকদের সন্তানদের জন্য 'পোড়ামাটি' স্কুল

নরসিংদীতে ইটভাটা শ্রমিকদের সন্তানদের জন্য গড়ে তোলা হয়েছে 'পোড়ামাটি' স্কুল। এখানে শিশুদের বিনামূল্যে শিক্ষা, পোশাক ও টিফিন দেয়া হচ্ছে। এ উদ্যোগে আশার আলো দেখছেন...