DBC News
আঙ্গুলের ইনফেকশন নিয়ন্ত্রণে সাকিবের

আঙ্গুলের ইনফেকশন নিয়ন্ত্রণে সাকিবের

মেলবোর্ন থেকে সুখবর এলো সাকিব ভক্তদের জন্য। আঙ্গুলের ইনফেকশন নিয়ন্ত্রণে এসেছে দেশসেরা ক্রিকেটারের। চিকিৎসক বলছেন সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী তিন মাসের মধ্যেই ফিরতে পারবেন মাঠে।

মেলবোর্নের হাসপাতালে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক গ্রেগ হয়ের তত্ত্বাবধানে চলছে তার হাতের চিকিৎসা, সব পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফল আজ পাওয়া গেছে। রিপোর্টে বলা হয়েছে ইনফেকশন নিয়ন্ত্রণে। তবে পুরো সেরে উঠতে সময় লাগবে কিছুটা। আপাতত রবিবার অবদি হাসপাতালে থেকেই এন্টিবায়োটিক কোর্স শেষ করতে হবে।

মেডিকেল রিপোর্টের পর আজ মঙ্গলবার থেকেই শুরু হয়েছে সাকিবের ফিজিও থেরাপি। এরই মধ্যে তার আঙুলে চামড়া উঠতে শুরু করেছে এবং উন্নতিও চোখে পড়ার মতো। তবে চিকিৎসকের কড়া নির্দেশ তিন মাসের আগে ব্যাট ধরা যাবে না। এই তিন মাসে ব্যাথা পুরোপুরি চলে গেলে সাকিবের অস্ত্রোপচার নাও লাগতে পারে।

এদিকে, বিসিবির চাপে নয় নিজের সিদ্ধান্তেই এশিয়া কাপ খেলেছেন সাকিব। ডাক্তার, ফিজিও আর সাকিবের মত নিয়েই ওকে খেলানো হয়েছিলো দাবি বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের। পাপনের আশা দ্রুতই সেরে যাবে আঙুলের ইনফেকশন। মাস তিনেকের মধ্যে আবারও ক্রিকেটে ফিরতে পারবেন সাকিব। দেশে ফিরলে ন্যাশনাল টিম ফিজিও চন্দ্রমোহানের সঙ্গেও বসতে চান বিসিবি প্রধান।

কমপক্ষে আড়াই থেকে তিন মাস। সাকিব আল হাসানকে দলে পাবেনা টিম টাইগারস। ভয়াবহ ইনফেকশন, বেজেছে সাকিবের আঙুলের বারোটা। ইনফেকশন সারলেও আর কোনদিনই আগের মত ঠিক হবে না কনিষ্ঠা জানিয়েছিলেন সাকিব নিজেই।  

সাকিব ভক্ত থেকে সাধারণ ক্রিকেট পাগল জনতা। সবার মনেই তীব্র ক্ষোভ। অভিযোগ বিসিবির চাপেই নাকি চোট নিয়ে এশিয়া কাপ খেলেছেন দেশ সেরা অল রাউন্ডার। তবে অভিযোগ আমলে নিতে নারাজ টাইগার ক্রিকেটের বড় কর্তা।

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানান, 'এশিয়া কাপে খেলার জন্য সাকিবকে ফোর্স করা হয়নি। সাকিব যখন আমার সিদ্ধান্ত জানতে চায় আমি বলেছিলাম এটা তো তোমাদের সিদ্ধান্ত। আমি ফিজিওথেরাপিষ্টের সিদ্ধান্তও জানতে চাই তার কাছে। আমি এটাও জানতে চাই যো খেলায় অংশ নিলে সমস্যা আরও বাড়বে কিনা। সে জানায়, তেমন কোন সম্ভবনা নাই। তখন আমি তাকে একজন ভাল চিকিৎসকের কাছ থেকে সিদ্ধান্ত নেয়ার পরামর্শ দেই। এটাই ছিল সাকিবের সাথে আমার সব শেষ কথা।'

পাপন আরও জানান, 'তার ক্ষত দ্রুত সেরে উঠছে। ঢাকাতে থাকাকালেও দ্রুতই উন্নতি হচ্ছিল। কি কারণে এ সমস্যা হলো সে বিষয়ে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করছি। এমন না যে খেলতে গিয়ে আবারও ব্যাথা পেয়েছে। তাহলে ধরে নিতাম সাকিবকে খেলতে পাঠানো উচিত হয়নি। ফিরে এসেও বলেনি তার কোন সমস্যা হচ্ছে।'

বিদেশে থাকা সাকিবের সঙ্গে ফোনে কথা বলছেন পাপন। এই মূহুর্তে কন্ট্রোলেই আছে ইনফেকশন। আপাতত লাগছে না অপারেশন। তারপরেও যদি সার্জারি করাতে চান সাকিব পাবেন বিসিবির পূর্ণ সহযোগিতা।

সাকিবের ইনফেকশন নিয়ে ফিজিও চন্দ্রমোহানকে সরাসরি দায়ী করতে নারাজ পাপন। তারপরেও দেশে ফিরলে এই শ্রীলংকানের সাথে বসতে চান বিসিবি প্রধান।