DBC News
'মাইকেলে'র আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭

'মাইকেলে'র আঘাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার উত্তরাঞ্চলে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছে হারিকেন মাইকেল। এর আঘাতে এ পর্যন্ত সাতজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার ঝড়ে বিধ্বস্ত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করে দেশটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মাইকেলের আঘাতে অনেক পরিবার তাদের সবকিছু হারিয়েছে। রাস্তাঘাটে ধ্বংসাবশেষ পড়ে থাকায় এবং পানি জমার কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। ব্যাহত হচ্ছে উদ্ধার তৎপরতা। ঝড়ের পর ফ্লোরিডায় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে। 

বুধবার ফ্লোরিডার উপকূলীয় এলাকায় চার ক্যাটাগরিতে ঘণ্টায় আড়াই'শ কিলোমিটার বেগে আঘাত হানে মাইকেল। যুক্তরাষ্ট্রে আঘাত হানা তৃতীয় সর্বোচ্চ শক্তিশালী ঝড় মাইকেল। 

হারিকেনটির আঘাতে সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে ফ্লোরিডার উত্তরপশ্চিম উপকূলে। ঝড়টি এখন দুর্বল হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলোর দিকে অগ্রসর হচ্ছে।

ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে ঝড়ের আগেই ৩ লাখ ৭০ হাজারেরও বেশি বাসিন্দাকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেতে নির্দেশনা দেয়া হলেও, অনেকেই তা না মানায় হতাহতের পরিমাণ বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে কর্তৃপক্ষ।

যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে আঘাত হানা অন্যতম শক্তিশালী এ ঝড়টি সেদিন স্থানীয় সময় দুপুরেই মেক্সিকো বিচ শহরের কাছে ফ্লোরিডার প্যানহ্যান্ডেলে আছড়ে পড়ে। আঘাত হানার সময় পাঁচ মাত্রার প্রায় কাছাকাছি শক্তি ধারণ করা মাইকেলের আঘাতে বিভিন্ন এলাকায় ৯ ফুট পর্যন্ত উঁচু ঢেউ দেখা গেছে।

মাইকেলের আঘাতে তছনছ হয়ে গেছে আপালাচিকোলা শহরটি। এ শহরটিতে প্রায় দুই হাজার তিনশ বাসিন্দার বসবাস। ছিঁড়ে পড়া বিদ্যুতের তারের কারণে সেখানে উদ্ধার ও ত্রাণ কার্যক্রম চালানো কঠিন হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছেন শহরটির মেয়র। ধ্বংসস্তূপ ও বন্যার পানির কারণেও ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় পৌঁছানো সহজ হচ্ছে না। নিরাপদে সরে যাওয়া বাসিন্দাদের এখনই বাড়ি না ফিরতে অনুরোধ করেছেন দেশটির গভর্নর স্কট। 

যুক্তরাষ্ট্রের উপকূলে আছড়ে পড়ার আগে মাইকেল মধ্য আমেরিকার দেশগুলোতেও ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। ঘূর্ণিঝড়টির তাণ্ডবে নিকারাগুয়া, হন্ডুরাস ও এল সালভাদরে অন্তত ১৩ জন মারা গেছেন বলে জানায় আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম।