DBC News
'হত্যার পর খাশোগিকে গভীর অরণ্যে ফেলে দেয়া হয়'

'হত্যার পর খাশোগিকে গভীর অরণ্যে ফেলে দেয়া হয়'

সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যা করে তার মরদেহ ইস্তানবুলে সৌদি কনস্যুলেটের পার্শ্ববর্তী বনাঞ্চল অথবা ফসলি জমিতে ফেলে দেয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তুর্কি কর্মকর্তা। খাশোগির সন্ধানে কনস্যুলেট ভবন ও তার আশপাশে তল্লাশি চালিয়ে যাচ্ছে তুরস্কের পুলিশ। সেই সঙ্গে কনস্যুলেট থেকে সংগ্রহ করা বিভিন্ন নমুনা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। 

এর আগে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, জামাল খাশোগিকে হত্যা করা হয়েছে বলেই মনে করছেন তিনি। এ ঘটনায় সৌদি আরব জড়িত থাকলে দেশটির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারিও দেন তিনি। 

এদিকে, বৃহস্পতিবার এক তুর্কি কর্মকর্তা এবিসি নিউজকে জানায়, রিয়াদ সফরে এসে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও জামাল খাশোগিকে হত্যার ঘটনার সময়ের একটি অডিও রেকর্ড শুনেছেন বলে জানান। তবে বিষয়টি এখনও পর্যন্ত স্বীকার করেনি মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। 

মূলত, খাশোগির বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতেই সৌদি সফরে যান মাইক পম্পেও। সৌদি আরব তাকে ঘটনা তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে বলে জানান তিনি।
আর ঘটনার তদন্তে সৌদি আরবকে আরও কিছু সময় দিতে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অনুরোধ করেছেন, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এদিকে, খাশোগি নিখোঁজের ঘটনা তদন্তে সৌদি আরবকে বাড়তি সময় দিলেও, রিয়াদে আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠেয় বিনিয়োগকারীদের সম্মেলন বয়কট করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বৃহস্পতিবার দেশটির অর্থমন্ত্রী স্টিভেন মিউচিন তার সৌদি সম্মেলনে যাওয়ার পরিকল্পনা বাতিল করেন।

গত ২রা অক্টোবরে তুরস্কে ইস্তানবুলের সৌদি কনস্যুলেটে ঢোকার পর আর বেরিয়ে আসেননি সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি। সেখানেই তাকে খুন করা হয়েছে বলে তুরস্ক আভিযোগ করে এলেও, বিষয়টি এখনও পর্যন্ত অস্বীকার করে আসছে সৌদি আরব।

তুরস্কের দাবি, হত্যার সময় খাশোগির হাতে অ্যাপল ওয়াচের রেকর্ডিং চালু ছিল। তার মৃত্যুর সময়কার রেকর্ড হওয়া কথোপকথন তাদের হাতে এসেছে।  
রেকর্ড সূত্রে জানা যায়, খাশেগিকে টেনেহিঁচড়ে কনসাল জেনারেলের অফিস কক্ষ থেকে পাশের কক্ষের একটি টেবিলের ওপর শুইয়ে সেখানেই  টুকরো টুকরো করা হয়। রেকর্ডে খাশোগির চিৎকার শোনা যায়। তার চিৎকার বন্ধ করতে শরীরে চেতনানাশক ওষুধের ইনজেকশন দেয়া হয় এবং এর কিছুক্ষণ পর তিনি মারা যান বলেও ধারনা করছে তুরস্ক। 

খাশোগি নিখোঁজের সঙ্গে সৌদি গোয়েন্দা সংস্থার ১৫ কর্মকর্তার জড়িত বলে জানায় তুরস্ক। গত ২রা অক্টোবর তুরস্কে আসা ওই ১৫ সৌদি কর্মকর্তার পাসপোর্টের ছবির ভিত্তিতে, পরিচয় প্রকাশ করে একটি ভিডিও সম্প্রচার করে তুরস্কের গণমাধ্যম।