DBC News
ম্যাচ জিততে টাইগারদের দরকার আরও ২৯৫ রান

ম্যাচ জিততে টাইগারদের দরকার আরও ২৯৫ রান

সিলেট টেস্ট জিততে বাংলাদেশের দরকার আরও ২৯৫ রান। হাতে আছে দশ উইকেট আর পুরো দুই দিন। তৃতীয় দিনের শেষে বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংসে সংগ্রহ করেছে বিনা উইকেটে ২৬ রান। টেস্টের তৃতীয় দিন চা বিরতির পর ১৮১ রানে গুটিয়ে যায় সফরকারীদের দ্বিতীয় ইনিংস। বাংলাদেশের টার্গেট দাড়ায় ৩২১ রান।

দ্বিতীয় দিন শেষে ১৪০ রানের লিডে টাইগারদের কাধে সওয়ার হয় রোডেশিয়ানরা। জিম্বাবুয়ের অ্যাকাউন্টে পাক্কা দশ উইকেট। তৃতীয় দিনে আরও বড় লিডের ইশারা দেয় তারা। ঝুম বৃষ্টিতে ভেসে যায় সিলেটের গেল রাত, আকাশ জুড়ে মেঘ। পানি পেয়ে তরতাজা মাঠের বাইশ গজ। টাইগার স্কোয়াডে এক পেসার থাকার কারণে কন্ডিশন কাজে লাগাতে পারেনি স্বাগতিকরা।

অপুর কারণে প্রথম ব্রেক থ্রুটাও এনে দিতে পারেননি আবু জায়েদ রাহী। কাজের কাজটা করেছেন মেহেদী মিরাজ। ব্রেন্ডন টেইলককে বিদায় দিয়েছেন তাইজুল। তবে মাসাকাদজা আর শন উইলিয়ামসের পঞ্চাশ রানের জুটিতে আরও পোক্ত হয়েছে জিম্বাবুয়ের পায়ের তলার মাটি। মাসাকাদজার মত ঝুঁকিপূর্ণ শট খেলতে গিয়ে আউট হন উইলিয়ামস। মুরকে বিদায় করে হ্যাট্রিক চ্যান্সও তৈরি করেন তাইজুল।

উইকেটে এসে সিকান্দার রাজাও টিকতে পারেননি বেশিক্ষণ। ১৩০ রানেই ছয় উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। উইকেটের হালি পুরা করেছেন, দ্বিতীয় টাইগার বোলার হিসেবে ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মত দশ উইকেট শিকার করেন তাইজুল।

চাকাভা আর ওয়েলিংটনের ৩৫ রানের পার্টনারশিপে টি ব্রেকের আগে তিন'শ রানের লিড নেয় জিম্বাবুয়ে। ব্রেক থেকে ফিরে আবারও ব্রেক থ্রু এনে দিয়েছেন মিরাজ। এক রানের ফারাকে অপু জোড়া স্ট্রাইক। আর চাতারাকে ফিরিয়ে তাইজুলের উইকেট নাম্বার ফাইভ, দুই ইনিংসে ১৭০ রানে ১১ উইকেট, বাংলাদেশের হয়ে তৃতীয় সেরা বোলিং।

১৮১ রানে অল আউট হয় জিম্বাবুয়ে। টাইগারদের সামনে দাঁড়ায় ৩২১ রানের বিশাল টার্গেট। জবাব দিতে নেমে কোন ক্ষয়ক্ষতি ছাড়াই তৃতীয় দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। চতুর্থ দিন আবারও বড় প্রত্যশা নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামবেন লিটন-ইমরুল।

এর আগে ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২১৫ রান তাড়া করে ম্যাচ জেতে টাইগাররা। আর ওটাই ছিলো টেস্টে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড।