DBC News
বিএনপির ছাড় ২৫ আসন, জামায়াতের দাবি আরও ৩

বিএনপির ছাড় ২৫ আসন, জামায়াতের দাবি আরও ৩

জামায়াতে ইসালামীকে ২৫টি আসনে ছাড় দিয়েছে বিএনপি, তবে  আরও ৩টি আসন নিয়ে দরকষাকষি চলছে বিএনপির পুরনো এই মিত্রের সঙ্গে। জামায়াত বলছে, সমঝোতা না হলে তাদের ২৫ স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেবেন।  আর বিএনপিসহ জোটসঙ্গীরা বলছেন, জামায়াতের উচিত স্বতন্ত্র নির্বাচন করা থেকে বিরত থাকা।

আসন ভাগাভাগি নিয়ে জটিল সমীকরণের মিলাতে হচ্ছে বিএনপিকে। দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সঙ্গী ২০-দলীয় জোট ছাড়াও এবার আসন ভাগাভাগি করতে হচ্ছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে।

এই দুই মোর্চার শরীকরা কে কতটি আসন পাচ্ছে তা এখনও চূড়ান্ত না হলেও জামায়াতে ইসলামীর জন্য ২৫টি আসন চূড়ান্ত করেছে বিএনপি। নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবে দলটি।

জামায়াতে ইসলামীর কর্মপরিষদ সদস্য মোহাম্মাদ সেলিম উদ্দিন বলেন, ‘প্রত্যাশা ছিল যে আমরা আমাদের শরিকদের কাছ থেকে আরও বেশি সিট পাবো। তবে শেষ পর্যন্ত আমাদের ২৫টা সিট নিশ্চিত হয়েছে। আরও তিনটি জায়গা আলোচনার মধ্যে রয়েছে। আমরা আশা করি এটা কোনও পাল্টাপাল্টি অবস্থার মধ্যে দাঁড়াবে না। এটা আমরা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে নিতে পারবো।’

তবে ২০ দলের শরিকরা বলছেন, অযৌক্তিক দাবি না করে যোগ্য প্রার্থী নিয়েই নির্বাচনের মাঠে নামতে চান তারা। এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব) অলি আহমেদ বলেন, ‘জামায়াতকেও তাদের আসন ছাড় দিতে হবে, এলডিপিকেও তাদের আসন ছাড় দিতে হবে এবং জাতীয় ঐক্যজোটকেও ছাড় দিতে হবে। প্রত্যেকটি দলকেই ছাড় দিয়ে একটি সমন্বয় করতে হবে। এখানে শুধু আসনের জন্য আসন নেবো, আর পরাজিত হবো, এই কাজটি কোনও বুদ্ধিমানের কাজ হবে না।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘আমরা যেহেতু ২৫টি আসন তাদের জন্য ছেড়ে দিয়েছি, সুতরাং তাদের হয়তো উচিত হবে না আবার স্বতন্ত্র প্রার্থী দেয়া।’

জামায়াতের প্রতি কোন বিদ্বেষপূর্ণ আচরণ করা হবে না বলে জানালেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘আমিতো আওয়ামী লীগের মধ্যে ২০ থেকে ২৫ জন দেখাতে পারবো, যারা নৌকা নিয়ে অতীতেও এমপি হয়েছে এবং ভবিষ্যতেও এমপি হবেন। তাহলে জামায়াত বলে যাদেরকে আপনারা চিহ্নিত করছেন, শীর্ষ জামায়াত অপরাধী যারা ছিল তাদের হয়তো বিচার হয়ে গেছে, আরও যদি দুই-চারজন থাকে বিচার হোক। এই বিচারের পক্ষে আমরা সহযোগীতা করছি। কিন্তু জামায়াত পরিবারের ছেলে মেয়েদের অপরাধ কি? আমি সরকারকে প্রশ্ন তুলি, আপনি কি সরকারকে নিষিদ্ধ করেছেন?’

জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য প্রার্থী নিয়েই ২০ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ঐক্যবদ্ধভাবে আওয়ামী লীগকে ভোটযুদ্ধে মোকাবেলা করবে বলে জানান তারা।