DBC News
'ছয় দফা না মানলে বিক্ষোভ চলবে'

'ছয় দফা না মানলে বিক্ষোভ চলবে'

নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় অধ্যক্ষকে বরখাস্ত করার বিষয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষের আনুষ্ঠানিক ঘোষণাসহ ছয় দফা দাবি না মানা পর্যন্ত বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা।

অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্তে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার পর দুপুর পোনে ২টার দিকে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা আসে।

শিক্ষার্থীদের পক্ষে আনুশকা রায় সাংবাদিকদের বলেন, 'আমরা শুনেছি আমাদের কিছু দাবি মেনে নেয়া হয়েছে। তবে আমরা আমাদের অধ্যক্ষ বা মুখপাত্রের পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত আনুষ্ঠানিক ঘোষণা চাই। আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আমাদের বিক্ষোভ কর্মসূচি চলবে।'

শিক্ষার্থীদের ছয় দফা দাবির মধ্যে রয়েছে-

·  অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌসকে বরখাস্ত ও আত্মহত্যার প্ররোচনার কারণে ৩০৫ ধারায় তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া।

·  শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন না করার নিশ্চয়তা।

·  কথায় কথায় শিক্ষার্থীদের ট্রান্সফার সার্টিফিকেট দেয়ার হুমকি বন্ধ করা।

·  শিক্ষার্থীদের মানসিক সুস্থতার জন্য প্রত্যেক ক্লাসে মনোবিদের ব্যবস্থা রাখা।

·  গভর্নিং বডির প্রত্যেক সদস্যের পদত্যাগ।

·  আন্দোলনকারী কারো বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নেয়া।

গতকাল মঙ্গলবারের মতো আজও বেইলি রোডের ভিকারুননিসা নুন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থীরা।

এদিকে, আজ বুধবার সচিবালয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ জানান, ভিকারুননিসা নূন স্কুলের শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যায় ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করা হয়েছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, 'প্রতিবেদন পেয়েছি। দোষীদের চিহ্নিত করা হয়েছে। ওই প্রতিষ্ঠানের নানা অনিয়মও উঠে এসেছে।' শিক্ষামন্ত্রী জানান, 'প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ, প্রভাতী শাখার প্রধান ও শ্রেণি শিক্ষককে অভিযুক্ত করা হয়েছে প্রতিবেদনে। তারা নির্দয় আচরণ করেন অরিত্রী ও তার অভিভাবককের সঙ্গে। অপমান করেন। আত্মহত্যায় প্ররোচণা দেন।' 

প্রতিবেদনে আইনী ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশও আছে উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, 'ওই ৩ জনকে বরখাস্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে, স্কুলের পরিচালনা পর্ষদকে। অন্য বিভাগীয় মামলাসহ আইনি ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশও দেয়া হয়েছে। একইসঙ্গে তাদের এমপিও বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে মন্ত্রণালয়।'

এই তিনজন হলেন, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখার প্রধান জিনাত আরা এবং শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনা।

প্রসঙ্গত গেল রবিবার সকালে, ভিকারুননিসা নূন স্কুলের পরীক্ষার হলে বিজ্ঞান বিভাগের নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রী অধিকারী মোবাইল ফোনসহ ধরা পড়ায়, তাকে হল থেকে বের করে দেয়া হয়। পরেরদিন সোমবার সকালে পরবর্তী পরীক্ষায় অংশ নিতে গেলে, তাকে পরীক্ষায় অংশ নিতে দেয়নি স্কুল কর্তৃপক্ষ।

অরিত্রীর পরিবারের অভিযোগ, ক্ষমা চেয়ে পরীক্ষা দেয়ার আবেদন করলে অরিত্রী ও তার বাবার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে অফিসকক্ষ থেকে বের করে দেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস। অরিত্রীর বাবা দিলীপ অধিকারী বলেন, 'আমি ক্ষমা চাইলাম, এটা তো বার্ষিক পরীক্ষা আর আগামি বছর আমার মেয়ে এসএসসি পরীক্ষা দেবে। কিন্তু তারা বললো, আগামীকাল এসে টিসি নিয়ে যাবেন। আমি আবারও প্রিন্সিপালের কক্ষে গেলে আমাকে বেরিয়ে যেতে বলেন।'

অপমান সহ্য করতে না পেরে অরিত্রী বাসায় ফিরে সিলিং ফ্যানে ঝুলে আত্মহত্যা করে। পরে তার মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে নেয়া হয়। অধ্যক্ষসহ কিছু শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রী নির্যাতনসহ নানা অভিযোগ তুলে বিচার দাবি করেন অভিভাবকেরা।

এদিকে,অরিত্রী অধিকারীকে আত্মহত্যার প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগে মঙ্গলবার, রাত ১০ টার দিকে রাজধানীর পল্টন থানায় অধ্যক্ষসহ তিনজনের নামে মামলা দায়ের করেন অরিত্রীর বাবা দিলীপ অধিকারী।

আরও পড়ুন

উন্নয়নের পক্ষে তরুণদের ভোট চাইলেন সাকিব

উন্নয়নের পক্ষে তরুণদের ভোট দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন, বাংলাদেশ টেস্ট ক্রিকেট দলের অধিনায়ক এবং বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তরুণ...

বন্ধ হওয়া অনলাইন পোর্টাল এবং ওয়েবসাইটগুলো এখন সচল

মিথ্যা ও গুজব ছড়ানোর অভিযোগে বন্ধ হওয়া নিউজ পোর্টালসহ ৫৮টি ওয়েবসাইট খুলে দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন, বিটিআরসি জানিয়েছে বন্ধ হওয়া সব নিউজ...

ভিকারুননিসার শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনার জামিন মঞ্জুর

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক হাসনা হেনাকে জামিন মঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ রবিবার বিকেলে তাঁকে জামিন দেয়া হয়। এর আগে, শিক্ষক হাসনা হেনার ম...

শ্রেণি শিক্ষকের মুক্তির দাবিতে ভিকারুননিসায় বিক্ষোভ অব্যাহত

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তির দাবীতে আজও বিক্ষোভ করেছে শিক্ষার্থীরা। দুপুরে, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রধা...