DBC News
বিপিএলে জয় পেয়েছে সিলেট সিক্সার্স ও রাজশাহী কিংস

বিপিএলে জয় পেয়েছে সিলেট সিক্সার্স ও রাজশাহী কিংস

অবশেষে নেইল বাইটিং ফিনিশ দেখলো বিপিএল। দিনের প্রথম খেলায় সিলেট সিক্সার্সের কাছে ৫ রানে হারল চিটাগং ভাইকিংস। মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে সিলেটের দেয়া ১৬৯ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ১৬৩ রানে নির্ধারিত ওভার শেষ করে ভাইকিংরা। 

মিরপুরের আন প্রেডিক্টেবল উইকেটে এবারের বিপিএল মানেই টস এন্ড বল।  কিন্তু স্রোতের বিপরিতে গিয়ে সিক্সার্স ক্যাপ্টেন ওয়ার্নার নিলেন টস এন্ড ব্যাট।

ক্যাপ্টেনের সিদ্বান্ত প্রশ্নবিদ্ধ করতেই কিনা দলীয় ৬ রানে সাজ ঘরে টপ অর্ডার তিন লোকাল রিক্রুট। ফ্রাইলিঙ্কের বলে ডাক মেরে আউট লিটন,সাব্বির। ৩ রানে নাইম হাসানের বলে ফিরলেন নাসির হোসেন।

যোগ্য সঙ্গীর খোঁজে ওয়ার্নার যখন হতাশ। তখনই ছোট কাধে বড় দায়িত্ব তুলে নিলেন আফিফ হোসেন, মারকুটে মেজাজে তান্ডব চালালেন বোলারদের উপর। ওয়ার্নারকে সাথে নিয়ে গড়লেন ৭১ রানের পার্টনারশিপ।

মাত্র ২৮ বলে ৪৫ রান করে খালেদের বলে যখন আফিফ কাটা পড়েন, তখনই  শান্ত ওয়ার্নার এবার বের হয়ে আসলেন খোলস থেকে, তুলে নিলেন নিজের প্রথম বিপিএল ফিফটি।

৫ম উইকেট জুটিতে ওয়ার্নার - নিকোলাস স্কোর শিটে যোগ করেন ৭০ রানের। ফ্রাইলিঙ্কের বলে মুশিফিকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ওয়ার্নার ফিরলেও অন্য প্রান্তে থামেনি নিকোলাস পুরানের তান্ডব।
 
মাত্র ৩০ বলে ৫০ রানের ঝড়ো ইনিংসে ১৬৮ রানের ফাইটিং টোটাল সিলেট সিক্সার্সের।  

জবাবে ডেলপোর্ট আশরাফুলের ব্যাটে শুরুটা ভালই করে ভাইকিংস। ৩৮ রানে ডেলপোর্ট ফেরার আগে গড়েন ৫৭ রানের জুটি। থিতু হয়েও ইনিংস বড় করতে ব্যর্থ আশরাফুল। ফেরেন তাসকিনের বলে। তাসকিন তোপে টিকতে পারেন নি সিকান্দার রাজা নাইম হাসানও।

৭ম উইকেট জুটিতে ফ্রাইলিঙ্কের ক্যামিয় ইনিংসে উত্তেজনা টিকে থাকে শেষ পর্যন্ত। তার ২৪ বলে ৪৪ কেবল স্বপ্নই দেখিয়েছে ভাইকিংসদের। 

এদিকে, মিরপুরে বিপিএলে দিনের ২য় ম্যাচে খুলনা টাইটানসকে ৭ উইকেটে হারিয়ে প্রথম জয় রাজশাহী কিংসের। খুলনার দেয়া ১১৮ রানের টার্গেট ছুতে কিংদের খরচ হয়েছে ৩ উইকেট।

১১৮ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নামা রাজশাহী দলীয় ১১ রানে মোহাম্মদ হাফিজকে হারিয়ে হোঁচট খেলেও ঘুরে দাঁড়ায় মুমিনুল-মিরাজের ব্যাটে চড়ে। মুমিনল হকের ৪৪ আর ক্যাপ্টেন মেহেদি হাসান মিরাজের হাফ-সেঞ্চুরি যোগ করা ইনিংসে সহজ জয় রাজশাহী কিংদের।

এর আগে টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালোই করেন দুই টাইটান ওপেনার স্টার্লিং ও জুনায়েদ সিদ্দিকি। ১৮ বলে ২৩ রান করে  স্ট্রার্লিং আউট হবার আগে ৪০ রানের জুটি গড়েন দুই ওপেনার। উদানার বলে ২৩ করে ফিরেন জুনায়েদ। মিডেল অর্ডারে জহুরুল ইসলাম ১ ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ১১ করে আউট  হলে চাপে পড়ে খুলনা। 

মালানের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেও লাভ হয়নি। ১৮ বলে ২২ করে সৌম্যর বলে ফেরেন  ইংলিশ অলরাউন্ডার। ডেভিড ওয়াইজের ১৪ রানে শেষ পর্যন্ত ১১৭ রানের পুজি পায় টাইটান্স। রাজশাহীর হয়ে ৩ উইকেট নেন লংকান রিক্রুট উদানা।