DBC News
'অগ্নি সন্ত্রাস ও দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে জনগণ রায় দিয়েছে'

'অগ্নি সন্ত্রাস ও দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে জনগণ রায় দিয়েছে'

ভোটের মাধ্যমে জনগণ অগ্নি সন্ত্রাস ও দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে রায় দিয়েছে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, 'মনোনয়ন বাণিজ্যই বিএনপির নির্বাচনে ভরাডুবির বড় কারন। তাদের অপকর্মের কারণেই মানুষ ভোট দেয়নি।

বৃহস্পতিবার, রাজধানীর খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটশনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনায় এ সব কথা বলেন তিনি।

নয় মাস রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধে শোচনীয় পরাজয়ের পর পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী বাধ্য হয়ে বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দেয়। বিজয়ের ২৪ দিন পর ৭২ সালের ১০ই জানুয়ারি স্বাধীন মাতৃভুমিতে পা রাখেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস স্বরণে আওয়ামী লীগ আয়োজিত এই আলোচনা সভায় যোগ দেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধান অতিথির বক্তব্যে দেশ ও জাতির জন্য বঙ্গবন্ধুর অবদানেরর কথা স্মরণ করেন তিনি।

নির্বাচনে বিএনপির ভরাডুবি দলটির ভুল ও সহিংস রাজনীতির কারণে হয়েছে বলে উল্লেখ করে আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিএনপি জোটের রাষ্ট্র পরিচালনায় ব্যর্থতার কারণে দেশ পিছিয়ে গিয়েছিল। 

বিএনপির সমালোচনা করে তিনি বলেন, ২০১৩ -২০১৪ সালে নির্বাচন ঠেকাতে আগ্নি সংযোগ, মানুষ হত্যা করে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১৫-তে বিএনপি জামায়াতের সন্ত্রাসীরা ৫৮২টি স্কুল পোড়ায়, ২ জন বিচারকসহ নির্বাচনি প্রিজাইডিং অফিসারকে হত্যা করে।

বিএনপি জামায়াতের দুঃশাসনের ফলে দেশে জরুরী অবস্থা আসে। ১/১১'র জরুরী অবস্থা চলার সময় দেশের মানুষের উপর অত্যাচার আরও বেড়ে যায় জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সারা দেশে এমন কোন এলাকা ছিল না, যেখানে জুলুম হয়নি। ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত সময়ে বাংলাদেশে সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ, মানি লন্ডারিং, অস্ত্র কেনাবেচা এতিমের অর্থ আত্মসাৎ করা হয়েছে।
 
শেখ হাসিনা বলেন, দুর্নীতিবাজ, অর্থপাচারী, অঙ্গিসন্ত্রাসীদের বাংলাদেশের মানুষ কখনও মেনে নেবেনা। রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ব্যর্থতার কারনেই, বিএনপির সময় দেশের উন্নতি হয়নি।' প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'এত মানুষকে হত্যা করার পরও তারা কীভাবে আশা করে যে, জনগণ তাদেরকে ভোট দেবে?

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে একাদশ জাতীয় নির্বাচনে জনগনের প্রত্যাশার মর্যাদা সরকার রাখবে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

১৯৭২ সালের ১০ই জানুয়ারি, স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে আসেন মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এরপর থেকে ১০ই জানুয়ারিকে জাতির জনকের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস হিসেবে পালন করে আসছে দেশবাসী।

আরও পড়ুন

সংকট আর প্রতিকূলতায় জর্জরিত মঞ্চনাটক

নানা সংকট আর প্রতিকুলতায় ডুবে আছে দেশের নাট্যদলগুলো। নেই রিহার্সালের জায়গা, নেই পর্যাপ্ত মঞ্চ আর জীবিকার নিশ্চয়তা; তারপরও থিয়েটারকে ভালোবেসে এখনো নাট্যকর্মীরা স...

হজযাত্রায় বিমান ভাড়া ১০ হাজার টাকা কমেছে

এবার হজযাত্রায় বিমান ভাড়া ১০ হাজার টাকা কমেছে। এ বছর যাত্রীপ্রতি ভাড়া লাগবে ১ লাখ ২৮ হাজার টাকা। সচিবালয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয় এবং ধর্ম মন্...

৬ই ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংলাপ করতে চায় ঐক্যফ্রন্ট

আগামী ৬ই ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংলাপ করতে চায় ঐক্যফ্রন্ট। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানিয়েছেন ফ্রন্টের নেতারা। তবে, এ বৈঠকে...

গাইবান্ধা-৩: সতর্ক থাকার নির্দেশ ইসির

স্থগিত হওয়া গাইবান্ধা-৩ আসনের নির্বাচন আগামী ২৭শে জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে; এই নির্বাচন যাতে বিতর্কিত না হয়, সে ব্যাপারে নজর রাখার নির্দেশ দিয়েছেন নির্বাচন কমিশন স...