DBC News
'স্বল্প মূলধনী কোম্পানি' আইন চূড়ান্ত

'স্বল্প মূলধনী কোম্পানি' আইন চূড়ান্ত

পুঁজিবাজারে 'স্বল্প মূলধনী কোম্পানি' তালিকাভুক্তির আইন চূড়ান্ত করেছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন। এই আইনের আওতায় আগামী তিন মাসের মধ্যে চালু হবে স্মল ক্যাপ বোর্ড। এতে বিপুলসংখ্যক ছোট মূলধনী প্রতিষ্ঠান পুঁজিবাজারে ঢুকবে বলে আশা বিশ্লেষকদের। সেজন্য কমিশন ও এক্সচেঞ্জকে দিতে হবে বিশেষ ছাড় ও প্রণোদনা।

বাংলাদেশে নিবন্ধিত দেড় লাখ প্রতিষ্ঠানের ৮৫ শতাংশের মূলধন ৩০ কোটি টাকার নিচে। অথচ আইপিও আইনে- এই বিপুলসংখ্যক প্রতিষ্ঠানের পুঁজিবাজার থেকে মূলধন সংগ্রহের সুযোগ নেই।

বিশ্লেষকরা বলছেন- আকার বাড়াতে হলে এসব কোম্পানিকেও আনতে হবে পুঁজিবাজারে। আর তাই তিন মাসের মধ্যেই এসব ছোট মূলধনী প্রতিষ্ঠানের জন্য চালু হচ্ছে স্মল ক্যাপ বোর্ড। এ বিষয়ে আইনও চূড়ান্ত করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা-বিএসইসি। পরিশোধিত মূলধন হতে হবে ৫ কোটি থেকে ৩০ কোটি টাকার নিচে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সাবেক সহ-সভাপতি আহমেদ রশীদ লালী বলেন, 'পাঁচ কোটি টাকার আইটি এবং টেকনোলজি কোম্পানিসহ প্রচুর কোম্পানি আছে যারা মার্কেটে আসতে পারে। ইনিসিয়ালি ৫ থেকে ৬টা কোম্পানি নিয়ে শুরু করে দেয়া যেতে পারে এমন একটি সিদ্ধান্ত ডিএসসির আছে। এই বোর্ডে লিষ্টেড হওয়ার মানে হচ্ছে বাজার সম্প্রসারিত হবে। বাজারে নতুন বিনিয়োগকারী আসবে, নতুন ফান্ড আসবে।'

ফিক্সড প্রাইস ও বুক বিল্ডিং দুই পদ্ধতিতেই এসব কোম্পানির শেয়ার আসবে বাজারে। সেগুলো কেনাবেচা করতে পারবে কমিশনের অনুমোদিত বিনিয়োগকারীরা।

ব্র্যাক ইপিএল স্টক ব্রোকারেজের প্রধান নির্বাহী শরীফ রহমান বলেন, 'ছোট মূলধনকে বলা হয় অনেকটা ঝুঁকি পূর্ণ স্টক। ছোট মূলধন যে কোনও সময় বসে যেতে পারে। যেহেতু ছোট কোম্পানি তাই রিটেইলের অনুমোদনটা প্রাথমিক পর্যায়ে দেয়া হবে না। দায়িত্বশীল বিনিয়োগকারীদেরকে এই স্মল ক্যাপিটাল কোম্পানিগুলোতে অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়া হবে।'

বিভিন্ন প্রক্রিয়ার কারণে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির খরচও কম নয়। ছোট প্রতিষ্ঠানগুলোর আগ্রহ বাড়াতে শুরুতেই বিভিন্ন প্রণোদনা দিতে হবে বলে জানান ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সাবেক সহ-সভাপতি আহমেদ রশীদ লালী।

তিনি বলেন, 'আমার মনে হয় লিষ্টিং ফি রিভিউ করা দরকার। একটা কোম্পানি যে ১৫ কোটি টাকা উত্তোলন করবে তাকে দুই থেকে আড়াই কোটি টাকা খরচ করতে হয় লিষ্টিং প্রসেসে। আমি রিকোয়েষ্ট করব এসিসি ও ডিএসসিকে যেন এ ক্ষেত্রে একটু খরচ কম হয়।'

ব্যবসা করে পরিশোধিত মূলধন ৩০ কোটি টাকা ছাড়ালে 'স্মল ক্যাপ' থেকে তখন মূল বাজারে আসবে প্রতিষ্ঠানগুলো। এভাবেই গভীরতা বাড়বে দেশের পুঁজিবাজারের। ব্র্যাক ইপিএল স্টক ব্রোকারেজের প্রধান নির্বাহী শরীফ রহমান জানান, 'আইন করবে এসিসি। আমাদের কাজ হলো সেগুলো প্রমোট করা।'

আইন অনুযায়ী- একজন বিনিয়োগকারী কোনো প্রতিষ্ঠানের বাজারে ছাড়া মোট শেয়ারের ১০ শতাংশের বেশি ধারণ করতে পারবে না।