DBC News
ভোটের হিসাবে অনেক পিছিয়ে বামজোট, ছাত্রদল

ভোটের হিসাবে অনেক পিছিয়ে বামজোট, ছাত্রদল

আলোচনায় বা ক্যাম্পাসে সরব উপস্থিতি থাকলেও ভোটের হিসাবে অনেক পিছিয়ে বামজোট, ছাত্রদলসহ বিভিন্ন সংগঠন। কেন্দ্রীয় বা হল সংসদের দু'একটি ছাড়া কোনও পদেই প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেই বাম ছাত্রসংগঠনগুলোর জোট ও ছাত্রদলসহ ক্যাম্পাসে সক্রিয় বলে বিবেচিত ছাত্রসংগঠনগুলো। এমন কি ভোটের হিসাবে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের থেকেও তারা পিছিয়ে।

ভোট শেষ হওয়ার এক ঘন্টা আগে ডাকসু নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেয় ছাত্রদল, বাম ছাত্রসংগঠনগুলোর জোটসহ ৫টি প্যানেলের প্রার্থীরা। সংবাদ সম্মেলনে কোটা আন্দোলন এবং স্বতন্ত্র জোটের প্রার্থীরা উপস্থিত থাকলেও, মুখপাত্রের ভূমিকা নেন বামজোটের লিটন নন্দী।

গণনা শেষে দেখা যায় ডাকসুর ভিপি প্রার্থী নন্দী ১,২১৬ ভোট নিয়ে ২১ প্রার্থীর মধ্যে চতুর্থ অবস্থানে। বিজয়ী প্রার্থীর প্রায় দশভাগের এক ভাগ ভোট পেয়েছেন তিনি। এ পদে তার চেয়ে দ্বিগুনের বেশী ভোট পেয়েছেন, স্বতন্ত্র জোটের প্রার্থী অরণী সেমন্তি খান। ছাত্রদলের ভিপি প্রার্থী ২৪৫ ভোট পেলেও জাসদ ছাত্রলীগ, ছাত্র মৈত্রীসহ কোনও প্রার্থীরই ভোট একশোর বেশী নয়।

ছাত্র ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী বলেন, ‘নির্বাচন কেমন হয়েছে বা নির্বাচনে কি হয়েছে, আর সেখানে আমি দশ হাজার ভোট পেয়েছি নাকি শূন্য ভোট পেয়েছি, সেটা আমার কাছে বিবেচ্য না। কারণ এই নির্বাচনের ফলাফলটিকেই আমি গ্রহণ করছি না।’

জিএস পদের ভোট বিশ্লেষণ করেও দেখা গেছে একই চিত্র। বড় ব্যবধানে জয় পাওয়া ছাত্রলীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে এ পদে বাম জোটের প্রার্থী ২৪৭ ভোট পেয়ে ৬ষ্ঠ আর ছাত্রদল ৪৬২ ভোট পেয়ে রয়েছে পঞ্চম অবস্থানে। জাসদ ছাত্রলীগ ও ছাত্রমৈত্রীসহ ক্যাম্পাসে সক্রিয় বলে বিবেচিত ছাত্রসংগঠগুলোর প্রার্থীদের সবারই ভোট একশোর নিচে।

ছাত্রদল ভিপি প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সমাজ এখন সচেতন। তারা উপলব্ধি করছে যে, এই নির্বাচন একটি বানোয়াট নির্বাচন। ছাত্রদলকে মূল ধারার রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখার জন্যই এই নির্বাচনের আয়োজন করা হয়েছে।’

এজিএস ছাড়া ৯টি সম্পাদকীয় পদের একটিতে জয় পেয়েছেন, কোটা আন্দোলনকারীরা। বাকী আটটির চারটিতেই ছাত্রলীগ প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। একটিতে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল ছাত্রদলের প্রার্থী। আর তিনটিতে স্বতন্ত্র জোটের প্রার্থী। ভোটের হিসাবে শেষের দিকেই অবস্থান আলোচিত সংগঠনগুলোর প্রার্থীদের।

স্বতন্ত্র জোট ভিপি প্রার্থী অরণি সেমন্তী খান বলেন, ‘পঁচিশটা পদের মধ্যে দু'টো কৌশলগতভাবে ছাড় দিয়ে বাকিগুলো একটি বিশেষ প্যানেলকে দিয়ে দেয়া আসলে খুবই অবান্তর। নম্বর আসলে গুরুত্বপূর্ণ না, আমি হারলাম বা জিতলাম।’

১৩টি সদস্য পদের সবক'টিতেই বিজয়ী হয়েছে ছাত্রলীগ। আর ছাত্রলীগ ছাড়া অন্য কোনও প্যানেল এই পদে ১৩ জন করে প্রার্থীই দিতে পারেনি। এছাড়া, ১৮টি হলের কোনটিতেই ছাত্রলীগ ছাড়া পূর্ণ প্যানেল দিতে পারেনি অন্যরা।

দীর্ঘ ২৮ বছর ১০ মাস পর গেল ১১ই মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ- ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে ১৮টি হল সংসদের ১২টিতে ভিপি ও ১৪টিতে জিএস পদে ছাত্রলীগ এবং ছয়টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ভিপি পদে ও চারটিতে জিএস পদে জয়লাভ করেন।

আরও পড়ুন

স্বাধীন দেশ নিয়ে কণ্ঠযোদ্ধাদের ভাবনা

মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত স্বাধীনতার ৪৮ বছরে এসে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পীরা কী ভাবছেন দেশ নিয়ে? বুক ভরা আশা আর সাহস নিয়ে যারা ঝাঁপিয়ে পড়েছিল...

আজ মহান স্বাধীনতা দিবস

মহান স্বাধীনতা দিবস আজ। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের মাধ্যমে স্বাধীনতার ৪৮ তম বার্ষিকী উদযাপন করছে জাতি। পাক হানাদার বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার আগে ২৬শে মার...

মাদারীপুরে জেলা ছাত্রলীগ নেতার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

মাদারীপুরে একটি নির্মাণাধীন ভবন থেকে জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি লিমন মজুমদারের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তিনি শহরের সবুজবাগ এলাকার বাবুল মজুমদার...

তৃতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনে পাওয়া সবশেষ ফলাফল

তৃতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে এখন পর্যন্ত চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের জয় পেয়েছে ৪৭ জন।  আর অন্যরা জয় পেয়েছে ৩৫টি উপজেলায়।এই ধাপে চেয়ারম্যান পদে বিনা প...

এইচএসসি'র জন্য ৬ই মে পর্যন্ত কোচিং সেন্টার বন্ধ

উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষার সময়ে আগামী ১লা এপ্রিল থেকে ৬ই মে পর্যন্ত সারা দেশে সব কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। আজ সোমবার দুপুরে, শিক্ষা ম...

ডাকসু নিয়ে আশায় নীলরা, সাদারা সন্দীহান

ডাকসু'র নব নির্বাচিত নেতারা কতটুকু দায়িত্ব পালন করতে পারবেন তা নিয়ে নানা মত রয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের। বিএনপিপন্থি সংগঠন সাদা দলের শিক্ষকদের সন্...