DBC News
পার্বত্যাঞ্চলে উপজেলা নির্বাচনি প্রচার

পার্বত্যাঞ্চলে উপজেলা নির্বাচনি প্রচার

দ্বিতীয় ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে সরগরম পার্বত্য তিন জেলা বান্দরবান, খাগড়াছড়ি ও রাঙ্গামাটি। প্রচার, প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থীরা।  ভোটারদের দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি।

পোস্টারে পোস্টারে ছেয়ে গেছে পার্বত্য জেলা বান্দরবান শহর। বিভিন্ন প্রতীকে সাদা কালো পোস্টারের দেখা মিলছে তৃণমূলেও। ভোটারদের মন জয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন প্রার্থীরা । 

দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জেলার ৭টি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ, বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত, জেএসএসের ১৭ জন, পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৭ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৫ জন অংশ নিচ্ছেন।  আর দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপি ৫ জন প্রার্থী লড়ছেন। 

ভোটারদের নানা প্রতিশ্রুতির পাশাপাশি অনেক প্রার্থী সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন। 

রোয়াংছড়ি পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির চেয়ারম্যান প্রার্থী ক্যবামং বলেন, 'জনগণ এখনো নির্বাচন নিয়ে অনিহা এবং আশংকা প্রকাশ করছে। তারপরও আমরা তাদের আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছি। আপনারা আপনাদের ভোট দিয়ে যাবেন।'
 
সদর আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী এ কে এম জাহাঙ্গীর বলেন, 'আমি যদি নির্বাচিত হই তাহলে আমার একটাই উদ্দেশ্য হচ্ছে জনগণের কাতারে এসে তাদের সঙ্গে কাজ করা।'

এদিকে দ্বিতীয় দফায় রাঙামাটির দশ উপজেলায় এখন নির্বাচনি আমেজ। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ২২ জন, পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩১ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৬জন।  এরিমধ্যে লংগদু ও কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। 

আর নির্বাচিত হলে বরাবরের মতোই উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন প্রার্থীরা।

সদর আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী শহীদুজ্জামান মহসীন রোমান বলেন, 'উপজেলাবাসি গত ৫ বছর যে সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছে আমি নির্বাচিত হলে তাদের সে সকল অধিকার ফিরিয়ে দিব।'

স্বতন্ত্র ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী রিতা চাকমা জানান, 'ভোটের সময় যদি কোন কারচুপি বা কেন্দ্র দখলের ঘটনা না ঘটে তাহলে আমি বিজয়ী হব। আমরা একটা সুষ্ঠু নির্বাচন চাই।'

নির্বাচনি হাওয়া খাগড়াছড়ির ৯টির মধ্যে ৮ উপজেলায়। গণসংযোগ, প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরা। অপর গুইমারা উপজেলা পরিষদের মেয়াদ উত্তীর্ণ না হওয়ায় নির্বাচন হচ্ছে না। 

খাগড়াছড়ির পানছড়ির আওয়ামী লীগ চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয় দে বলেন, আমি নির্বাচিত হলে আমার এলাকার শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং পানীয় জলের যে সমস্যা আছে তা নিরসনে কাজ করবো।'

আর ভোটাররা বলছেন যোগ্য প্রার্থীই বেছে দিবেন তারা। 

আরও পড়ুন

'কৃষকদের দুরবস্থার জন্য সরকারের ভুল নীতি দায়ী'      

কৃষকদের দুরবস্থার জন্য সরকারের ভুল নীতি দায়ী। অথচ সরকার কৃষকের আন্দোলনের সঙ্গে বিএনপিকে জড়ানোর চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম...

'বিজেপির জয়ে অমিমাংসিত বিষয়ের সমাধান হবে'

বিজেপির টানা জয়ে ভারতের সাথে অমিমাংসিত বিষয়ের সমাধান হবে বলে আশা করছেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। শুক্রবার সকালে, রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আওয়া...

উপকূলে ৩নং সতর্কতা

বজ্রমেঘের কারণে ঝোড়ো হাওয়ার আশঙ্কায় দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোকে তিন (০৩) নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।শনিবার আবহাওয়া বর্তায় সামুদ্র বন্দর গুলোর...

বজ্রপাতে সিরাজগঞ্জ ও পিরোজপুরে ৩জন নিহত

বজ্রপাতে সিরাজগঞ্জ ও পিরোজপুরে তিনজন নিহত এবং তিন ব্যক্তি আহত হয়েছে। সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় সেনগাতী গ্রামে ভোর রাতের বজ্রপাতে দুইজন নিহত ও অন্তত ৩জন আহত হয়েছে।...