DBC News
দুর্ঘটনায় পড়া উড়োজাহাজটির ড্যাশ এইট ভেঙে তিন টুকরা

দুর্ঘটনায় পড়া উড়োজাহাজটির ড্যাশ এইট ভেঙে তিন টুকরা

ইয়াঙ্গুনে দুর্ঘটনায় পড়া বাংলাদেশ বিমান এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজটির ড্যাশ এইট ভেঙে তিন টুকরা হয়েছে। ডানা, চাকা ও দরজা ভেঙেছে, ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ইঞ্জিন। এই উড়োজাহাজটি সচল হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম, বলছেন বিমানের সাবেক পাইলটরা। সংকটের মাঝেও এই উড়োজাহাজ কমে যাওয়ায় বিমানের বহর সমস্যা আরও প্রকট হতে পারে, এলোমেলো হতে পারে ফ্লাইট শিডিউল।

ইয়াঙ্গুনে দুর্ঘটনায় পড়া ড্যাশ এইট উড়োজাহাজটি মিশরের স্মার্ট এভিয়েশন থেকে পাঁচ বছরের জন্য লিজে আনা হয় ২০১৫ সালে। ড্রাই লিজে আনা এই উড়োজাহাজটির জন্য ভাড়া হিসেবে বিমানকে প্রতি মাসে ৮৪ হাজার ডলার পরিশোধ করতে হয়। চুক্তি অনুযায়ী উড়োজাহাজটি যে অবস্থায় আনা হয়েছিল সেই অবস্থায় ফিরিয়ে দিতে হবে।

তিন টুকরা হয়ে যাওয়া এই উড়োজাহাজটি মেরামত করে বহরে ফিরিয়ে আনা সম্ভব কি? প্রশ্ন ছিল বাংলাদেশ পাইলট এসোসিয়েশন বাপার সাবেক সভাপতি ক্যাপ্টেন(অব.) নাসিমুল হকের কাছে। তিনি বলেন, উড়োজাহাজটিতে স্ট্রাকচারাল ড্যামেজ হয়েছে অনেক। ইঞ্জিনও ড্যামেজ হয়েছে, এটি ঠিক করার মত অবস্থায় নেই। এটি ঠিক করতে নতুন আরেকটা প্লেনের সমান খরচ হবে।

বৈরি আবহাওয়ার কারণেই বিমানটি দুর্ঘটনায় পড়েছে, এমন তথ্যই দিয়েছে বিমান কর্তৃপক্ষ। যদি খারাপ আবহাওয়ার পূর্বাভাস পাওয়াই যায় তবে ইয়াঙ্গুনের পরিবর্তে অন্য কোথাও অবতরণ করা যেত কি না ?

এ বিষয়ে বাংলাদেশ পাইলট এসোসিয়েশন বাপার সাবেক সভাপতি ক্যাপ্টেন(অব.) নাসিমুল হক বলেন, বিমান ল্যান্ড করার সময় অনেক কিছু ভ্যারিয়েশন হয়। বাতাসের স্পিড,ডাইরেকশন ভ্যারিয়েশন, ডাউন এবং আপ ড্রাফট হয় এগুলো কিন্তু দেখা যায় না। তাই আমার মনে হয় পাইলট বুঝেই নেমেছে এখানে নামার মত পরিস্থিতি আছে, কিন্তু তখন যদি আবহাওয়ার অন্য কোন খেলা থেকে থাকে সেখানেই ঝামেলা হয়ে থাকে।

১৪ই মে থেকে বিমানের বহরে যোগ হচ্ছে আরেকটি বোয়িং সেভেন ত্রি সেভেন। ফলে সাময়িক শিডিউল বির্পযয় কাটিয়ে উঠা সম্ভব বলে জানান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের মহাব্যবস্থাপক শাকিল মেরাজ।

তিনি বলেন, নতুন উড়োজাহাজটির আসন সংখ্যা প্রায় ১৬২টি, যা ক্ষতিগ্রস্থ বিমানটির আসন সংখ্যার প্রায় দ্বিগুন। তাই আমাদের সাময়িক যে বিপর্যয় তা কাটিয়ে উঠতে তেমন কোন সমস্যা হবে না।

বুধবার সন্ধ্যায় ইয়াঙ্গুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দুর্ঘটনায় পড়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ড্যাশ-৮ উড়োজাহাজটি। দুর্ঘটনায় যাত্রীসহ ৩৫ আরোহীর সবাই প্রাণে বেঁচে যায়। এদের মধ্যে দুজন পাইলট, দুজন কেবিন ক্রু এবং দুজন গ্রাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন।