DBC News
ইয়াবা গডফাদার সাইফুল করিম যাদের নাম বলে গেলেন

ইয়াবা গডফাদার সাইফুল করিম যাদের নাম বলে গেলেন

দেশে ইয়াবা কারবারির ‘প্রধানতম গডফাদার খ্যাত’ সাইফুল করিম কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার আগে পুলিশের কাছে জিজ্ঞাসাবাদে ‘সিন্ডিকেটভুক্ত’ ৬৭ জনের নামে জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দিতে তিনি ইয়াবা কারবারিতে জড়িত ৬৭ জনের নাম ফাঁস করে দিয়েছেন।

ইয়াবা ডন সাইফুল করিমের দেয়া জবানবন্দিতে সহায়তাকারি হিসেবে স্বীকারোক্তি দিয়ে যাদের নাম উল্লেখ করেছেন তাতে, কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের আলোচিত সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদির দুই ভাই মুজিবুর রহমান ওরফে  মৌলভী মুজিব, আব্দুর শুক্কুর এবং হুন্ডি সম্রাট জাফর আলম প্রকাশ টিটি জাফর, টেকনাফ উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান জাফরসহ অনেকের নাম বলেছেন। এই তালিকায় পুলিশ কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতার নামও বলেছেন সাইফুল করিম।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সিন্ডিকেটভুক্ত ৬৭ জনের নাম-পরিচয় প্রকাশ করেছে বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচারিত হলেও এ ঘটনায় দায়ের করা ৩টি মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে ৩৩ জনের নাম। এরমধ্যে ১৮ জনের পূর্ণাঙ্গ নাম-পরিচয় এবং অন্য ১৫ জনের নাম অজ্ঞাত হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

মামলার এজহারে উল্লেখিত ৩৩ জন ইয়াবা কারবারির নাম:

বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার আগে কয়েকঘন্টা আগে ইয়াবা সম্রাট সাইফুল করিম পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে টেকনাফ সীমান্তে ইয়াবা ও হুন্ডি কারবারির সঙ্গে জড়িত ৩৩ জনের নাম ফাঁস করে দেন। এরমধ্যে, টেকনাফের সাবেক সাংসদ আব্দুর রহমান বদির দুই ভাই মুজিবুর রহমান ওরফে  মৌলভী মুজিব, আব্দুর শুক্কুর, ফুপাতো ভাই রাসেল,  টেকনাফ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জাফর আহমদ ও তার ছেলে টেকনাফ সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়া, টেকনাফের হুন্ডি সম্রাট খ্যাত জাফর আলম প্রকাশ টিটি জাফর ও তার ছোট ভাই গফুর, নাজির পাড়ার ইয়াবা সম্রাট নুরুল হক ভুট্টু, এনামুল হক মেম্বারসহ অনেকের নাম রয়েছে। থানায় দায়েরকৃত মামলার এজাহারে সাইফুল করিমের স্বীকারোক্তি তুলে ধরা হয়েছে।

সাইফুলের উল্লেখ করা ১৮ জন ইয়াবা কারবারি:

১. টেকনাফ পৌরসভার জালিয়া পাড়ার মৃত মো. হোসেনের ছেলে জাফর আহমদ ওরফে টিটি জাফর (৩৮), ২. অলিয়াবাদ গ্রামের আবু ছিদ্দিকের ছেলে ছৈয়দ আলম ওরফে সোনা মিয়া (৩৫), ৩. পুরান পল্লান পাড়ার হাফেজ আবু বক্করের ছেলে (বদির ভাগনে) মো. ফারুক (৩০), ৪. ডেইলপাড়ার কালা মোহাম্মদ আলীর ছেলে  মো. আমিন (৩৭), ৫. শীল বুনিয়াপাড়ার মৃত লাল মোহাম্মদের ছেলে নুর হাছান (২৮), ৬. দক্ষিণ জালিয়াপাড়ার মৃত খুইল্যা মিয়ার ছেলে আমির আলী ওরফে বর্মাইয়া আলী (৪৮), ৭. টেকনাফ সদর ইউনিয়নের বড়হাবিরপাড়ার মৃত আমির হামজার ছেলে মো. আলী আহম্মদ (৪৫), ৮. শীলবুনিয়াপাড়ার মো. রশিদের ছেলে মো. আয়াছ বর্মাইয়া আয়াছ (৩৮) এবং তার ছোট ভাই ৯. মো. ইয়াছের ওরফে বর্মাইয়া ইয়াছের (২৮), ১০. শীল বুনিয়াপাড়ার জুবায়েরের ছেলে মো. দেলোয়ার (৩০), ১১. কেরুণতলী এলাকার রশিদ আহমদের ছেলে মো. মিজান (২৮), ১২. লেঙ্গুরবিলের জাফর চেয়ারম্যানের বাড়ির পাশের মো. হোসেনের ছেলে মো. কাদের (২৮), ১৩. অলিয়াবাদ গ্রামের সিদ্দিক আহমদের ছেলে রবিউল আলম (২৫), ১৪. শীলবুনিয়াপাড়ার সোলাইমানের ছেলে মো. শফিক (৪৮), ১৫.  শীলবুনিয়াপাড়ার আবুল হোসেনের ছেলে মো. শামসু (২৮), ১৬. উত্তর লম্বরীর মাহবুব সর্দারের ছেলে মো. শামসু (৩৫), ১৭. মধ্য জালিয়াপাড়ার মো. হোসেনের ছেলে মো. মনিরুজ্জামান ওরফে আমির সাব (৪৮) এবং ১৮. নিহত সাইফুল করিমের ভাগনে মো. মিজান (২৭)।

এদিকে, ইয়াবা ডন সাইফুল করিমের ‘কথিত স্বীকারোক্তির’ বরাতে বিভিন্ন গণমাধ্যমে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও সাংবাদিকের নাম ইয়াবা কারবারিতে সহায়তাকারি হিসেবে প্রচারিত হওয়ায় ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। এ নিয়ে চলছে চুলচেড়া বিশ্লেষণ। সবকিছু ছাপিয়ে সাইফুল কর্তৃক এক সাংবাদিককে ব্যক্তিগত গাড়ি উপহার দেয়ার বিষয়টি এখন মূখ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখন জনমনে কৌতুহল গাড়ি উপহার নেয়া সেই সাংবাদিক কে? দেশের শীর্ষস্থানীয় ও প্রভাবশালী পত্রিকার কথা বলা হলেও অভিযুক্ত সাংবাদিকের নাম এবং তিনি কোন পত্রিকায় কাজ করেন তা প্রকাশ করা হয়নি।

মামলার এজহারে বলা হয়, 'সাইফুল করিম জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেন, টেকনাফ স্থলবন্দরে ব্যবসার আড়ালে মিয়ানমার থেকে বিভিন্ন ধরনের আমদানি পণ্যের ভেতরে লুকিয়ে বাংলাদেশে প্রথম 'ইয়াবা' নামক সর্বনাশা মাদক নিয়ে আসেন। সাইফুল করিম তখন থেকেই টেকনাফসহ সারাদেশে ইয়াবার একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট করত। তার অন্যতম সহযোগী ছিল টেকনাফের হুন্ডি সম্রাট খ্যাত জাফর আলম প্রকাশ ওরফে টিটি জাফর। টিটি জাফরের মাধ্যমে হুন্ডির টাকায় বাংলাদেশে ইয়াবার চালান আনা হতো। এরপর সিন্ডিকেটের মাধ্যমে সেই ইয়াবার চালান সারাদেশে পাচার করা হতো।'

প্রসঙ্গত, গেল ৩১শে মে ভোর রাতে টেকনাফ সীমানা প্রাচীরের শেষ প্রান্তে নাফ নদীর পাড়ে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে দেশের শীর্ষ ও তালিকার এক নম্বরে থাকা সাইফুল করিম নিহত হন। নিহত সাইফুল করিম টেকনাফ উপজেলার সদর ইউনিয়নের শীলবুনিয়াপাড়ার মোহাম্মদ হানিফ ওরফে ডা. হানিফের ছেলে।

এ সময়, পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৯টি দেশি বন্দুক, ৪২টি গুলি, ৩৩টি গুলির খোসা এবং ১ লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে।

পরে, ওই দিন সন্ধ্যায় টেকনাফ মডেল থানার এস আই রাসেল আহমেদ বাদি হয়ে ৩৩ জনের বিরুদ্ধে পৃথক ৩টি মামলা করেন। এরমধ্যে, ১৮ জন আসামির পূর্ণাঙ্গ নাম-ঠিকানা উল্লেখ করা হলেও ১৫ জনের নাম অজ্ঞাতনামা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন

তামাক কোম্পানির স্বার্থে আইনে পরিবর্তন!

জুলাই থেকে কার্যকর, ২০১২ সালের ভ্যাট আইন পরিবর্তন করে তামাক কোম্পানিগুলোকে প্রায় ৪শ কোটি টাকা কর ছাড় দেয়া হয়েছে। বাজেটে সিগারেটের দাম যেটুকু বাড়ানো হয়েছে তাতে শ...

সোহেল তাজের অপহৃত ভাগ্নে ময়মনসিংহ থেকে উদ্ধার

চট্টগ্রাম থেকে নিখোঁজের ১১ দিন পর সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজের ভাগ্নে ইফতেখার আলম সৌরভকে (২৫) ময়মনসিংহ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। আজ বৃহস্...

ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু; পরিচালক ও ডাক্তার গ্রেপ্তার

ভুল চিকিৎসায় এক প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরের একটি বেসরকারি ক্লিনিকের পরিচালক ও ডাক্তারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সকালে গোমস্তপুর থানার পি...

গৃহবধূর সহায়তায় ৫ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ

আশুলিয়ায় প্রতিবেশী এক গৃহবধূর সহায়তায় ধর্ষণের শিকার হয়েছে ৫ম শ্রেণীর স্কুল ছাত্রী। এ ঘটনায় অভিযুক্ত গৃহবধূ রাবেয়া বেগমকে আটক করলেও ধর্ষক পলাতক রয়েছে।বুধবার দুপু...

ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু; পরিচালক ও ডাক্তার গ্রেপ্তার

ভুল চিকিৎসায় এক প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরের একটি বেসরকারি ক্লিনিকের পরিচালক ও ডাক্তারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সকালে গোমস্তপুর থানার পি...

কুষ্টিয়ায় বাল্যবিয়ের আয়োজন; কিশোরীর ভাই ও বাবার কারাদণ্ড

কুষ্টিয়ার ঝাউদিয়ায় বাল্য বিয়ে দেয়ার অপরাধে মেয়ের বাবাসহ দুইজনকে কারাদণ্ড ও সহায়তার দায়ে ৪ ইউপি চেয়ারম্যানকে অর্থদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।সদর উপজেলার ঝাউদিয়া...

কুষ্টিয়ায় বাল্যবিয়ের আয়োজন; কিশোরীর ভাই ও বাবার কারাদণ্ড

কুষ্টিয়ার ঝাউদিয়ায় বাল্য বিয়ে দেয়ার অপরাধে মেয়ের বাবাসহ দুইজনকে কারাদণ্ড ও সহায়তার দায়ে ৪ ইউপি চেয়ারম্যানকে অর্থদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।সদর উপজেলার ঝাউদিয়া...

ট্যানারির বিষাক্ত বর্জ্যে তৈরি মাছ-মুরগির খাবার: ৬ প্রতিষ্ঠান সিলগালা

ট্যানারির বিষাক্ত বর্জ্য প্রক্রিয়াজাত করে তৈরি করা হচ্ছে মাছ, মুরগী ও গবাদি পশুর খাবার। রাজধানীর হাজারীবাগে বিষাক্ত ট্যানারি বর্জ্য দিয়ে পশু-পাখি ও মাছের খাবার...