DBC News
জামিন পেয়েই ধর্ষিতার পরিবারকে মেয়র পুত্রের হুমকি

জামিন পেয়েই ধর্ষিতার পরিবারকে মেয়র পুত্রের হুমকি

শরীয়তপুরে কলেজছাত্রী ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তারের ৮ দিনের মাথায় জামিনে মুক্তি পেয়ে ভুক্তভোগীর পরিবারকে হুমকি দিচ্ছেন আসামি। ধর্ষণ মামলায় অভিযুক্ত জাজিরা পৌরসভার মেয়র ইউনুছ ব্যাপারীর পুত্র মাসুদকে জামিন দেয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে নানা সংগঠন।

শরীয়তপুরে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় করা মামলায় গ্রেপ্তারের ৮ দিনের মাথায় গেল সোমবার জামিনে মুক্তি পেয়েছেন মামলার একমাত্র আসামি মাসুদ ব্যাপারী। মাসুদ জামিন পাওয়ায় ওই কলেজছাত্রী ও তার পরিবারের সদস্যরা আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন। ধর্ষণের শিকার ওই কলেজছাত্রীর পরিবারের অভিযোগ, জামিনে বেরিয়েই নানাভাবে তাদের হুমকি দিচ্ছেন অভিযুক্ত মাসুদ।

কলেজছাত্রীর বাবার অভিযোগ, লজ্জা, ভয় ও আতঙ্কে মেয়েটি কুকড়ে আছে। সারাক্ষণ ঘরে বসে কান্নাকাটি করে। লজ্জায় মানুষের সামনে যেতে পারে না। এই অবস্থায় অপরাধী জামিনে বেরিয়ে এসেছেন। আর সে প্রভাবশালী, তাই আশঙ্কা কখন কোন ক্ষতি করে।

তবে, পুলিশ বলছে, ভুক্তভোগী পরিবারের নিরাপত্তায় তৎপর রয়েছেন তারা। শরীয়তপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল মামুন সিকদার বলেন, 'ভুক্তভোগীর পরিবার যেন কোনো হুমকির সম্মুখীন না হয় এবং তার নিরাপত্তার জন্য যেন কোনো সমস্যা না হয় সেজন্য আমরা সচেষ্ট আছি।'

এদিকে, ধর্ষণে অভিযুক্তকে দ্রুত জামিন দেয়ার প্রতিবাদে মানবন্ধনসহ নানা কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে জেলার বিভিন্ন সামাজিক, নারী ও মানবাধিকার সংগঠন। নারী নেত্রী অ্যাডভোকেট রওশন আরা বলেন, 'এ জামিনের ফলে আমরা যারা সমাজে নারী নির্যাতন প্রতিরোধে কাজ করি তাদের কাজে বাধার সৃষ্টি হবে।'

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, শরীয়তপুর জেলা শাখা সভাপতি অ্যাডভোকেট মাসুদুর রহমান বলেন, 'এই ধরনের ন্যাক্কারজনক কাজের সাথে যারা জড়িত তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত তাদের জেলহাজতে রাখা প্রয়োজন।

প্রসঙ্গত, গত ২৯শে জুন সন্ধ্যার পর পর কলেজছাত্রী ধর্ষণের শিকার হন। ওই দিন, বিকেলে মাসুদ তার স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার জন্য কলেজছাত্রীকে বাড়িতে আসতে বলেন। পরে, ওই মেয়ে কাজ শেষ করে সন্ধ্যা ৭টার দিকে মাসুদের বাড়িতে আসেন। সেখানে মাসুদের পরিবারের কাউকে না দেখে বাড়ি ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু, মাসুদ তাকে ঘরে আটকে ধর্ষণ করেন। পরদিন, জাজিরা থানায় মাসুদের বিরুদ্ধে মামলা করেন ভুক্তভোগী কলেজছাত্রী। এই মামলায় পহেলা জুলাই মাসুদ ব্যাপারীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

১লা জুলাই আদালতের মাধ্যমে মাসুদ ব্যাপারীকে শরীয়তপুর জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। ৭ই জুলাই তার জামিন আবেদন করা হয় শরীয়তপুর জেলা আমলি আদালতে। এ সময়, তার সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করা হয়। কিন্তু, আমলি আদালতের বিচারক মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন মাসুদ ব্যাপারীর জামিন ও রিমান্ড আবেদন না মঞ্জুর করেন। পরে, জেলা ও দায়রা জজের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মরিয়ম মুন মঞ্জুরী জামিন মঞ্জুর করে আসামিকে কারাগার থেকে মুক্তি দেয়ার আদেশ দেন।

আরও পড়ুন

সাগরে মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা শেষ

সাগরে মাছ ধরার ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে মঙ্গলবার, বুধবার থেকেই কর্মব্যস্ততা শুরু হবে জেলেদের। গত ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ৬৫ দিন সাগরের অর্থনৈতিক অঞ্চলে...

ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগে হাসপাতাল ভাঙচুর করেছে স্বজনরা। নিহত আলী হায়দার স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।সোমবার রাত ১০ ট...

শীর্ষ ব্যবসায়ী নূর আলীকে দুদকে তলব

সিটি করপোরেশনের সঙ্গে চুক্তি ভঙ্গ করে ১৪ তলার বদলে বনানী ডিসিসি ইউনিক কমপ্লেক্স নামে ২৮ তলা ভবন নির্মাণ করার অভিযোগে শীর্ষ ব্যবসায়ী নূর আলীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্...

দুদকের বরখাস্ত পরিচালক বাছির গ্রেপ্তার

ঘুষ কেলেঙ্কারি মামলার আসামি দুর্নীতি দমন কমিশনের বরখাস্ত পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরকে গ্রেপ্তার করেছে দুদক।সোমবার রাতে দারুস সালামের একটি বাসা থেকে তাকে গ্রেপ...