DBC News
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রোহিঙ্গারা পাচ্ছে নাগরিক সনদ; জড়িত  ইউপি চেয়ারম্যান

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রোহিঙ্গারা পাচ্ছে নাগরিক সনদ; জড়িত ইউপি চেয়ারম্যান

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব সনদপত্র ও জন্মনিবন্ধন দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ কাজে যুক্ত থাকার অভিযোগ উঠেছে জেলার এক ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধেও। এদিকে, পাসপোর্ট অফিস থেকে এরইমধ্যে অভিযুক্ত বেশ কয়েকজন দালালকে আটক করেছে পুলিশ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার তিন উপজেলা বিজয়নগর, আখাউড়া ও কসবার সাথে আছে ভারতীয় সীমান্ত। আর বিশেষ করে কসবা সীমান্ত দিয়ে দালালের মাধ্যমে দেশে প্রবেশ করছে রোহিঙ্গারা। 

বাংলাদেশে এসে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের বিনিময়ে জন্ম নিবন্ধন ও নাগরিক সনদপত্র নিচ্ছে তারা। ব্যবহার করা হচ্ছে ভুয়া ঠিকানা ও পিতা-মাতার নাম।

এই কাজে রোহিঙ্গাদের সাহায্য করছেন, এমন অভিযোগ উঠেছে এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। তবে, রোহিঙ্গাদের সনদ দেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার বিনাউটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নিজের মেয়ের নাম জালিয়াতি করে রোহিঙ্গা এক মেয়েকে সার্টিফিকেট দিয়েছে। এ ঘটনা জানার পর আমি সচেতন হয়েছি।'

কোন জনপ্রতিনিধি রোহিঙ্গাদের সনদ দিয়ে থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান জেলা প্রশাসক। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খান বলেন, রোহিঙ্গা নাগরিকদের পাসপোর্ট তৈরি করার বিষয়ে, বাংলাদেশের কেউ বা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কোন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি অবৈধ বা জাল কাগজপত্র তৈরিতে সহায়তা করে থাকেন, অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেব।'

জাল পাসর্পোট প্রসঙ্গে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আঞ্চলিক পাসর্পোট অফিসের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ জামাল হোসেন জানান, সীমান্তবর্তী জেলা হওয়ায় সর্তক আছেন তারা। তিনি আরও বলেন, প্রত্যেকের আবেদনপত্র যাচাই করে জিঞ্জাসাবাদ করা হয়। আমার সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করছি যাতে রোহিঙ্গারা পাসপোর্ট না পায়। রোহিঙ্গা ক্যাম্পের যে ডাটাবেজ সেটা ইতিমধ্যে আমাদের লোকাল সার্ভারের সাথে সংযুক্ত করা হয়েছে।' 

পাসপোর্ট তৈরিতে রোহিঙ্গাদের সহযোগিতা করা দালালদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানায় পুলিশ। জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন বলেন, 'ভুয়া নাগরিকত্বের সনদ নিয়ে পাসপোর্ট করার চেষ্টা করে দুইজন ধরা পড়েছে। তারদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।'