বাংলাদেশ, জেলার সংবাদ

স্ত্রীর শরীর কেটে হত্যা করে ফাঁসির দড়িতে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে

গাইবান্ধা প্রতিনিধি

ডিবিসি নিউজ

বুধবার ১৫ই মে ২০২৪ ১০:২৩:৪০ অপরাহ্ন
Facebook NewsTwitter NewswhatsappInstagram NewsGoogle NewsYoutube

গাইবান্ধা সদর উপজেলার কুপতলা ইউনিয়নের ফকিরপাড়াগ্রামের সাজু মিয়ার ছোট মেয়ে শাহীনা আকতারকে ব্লেড দিয়ে হাতসহ শরীরের নানা জায়গা কেটে হত্যা করে ফাঁসির দড়িতে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ উঠেছে স্বামী কুপতলা ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে। ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর আলমের বাড়ি একই ইউনিয়নের নাখরাজ গ্রামে।

নিহতের স্বজনরা জানায়, জাহাঙ্গীর আলম বিবাহিত। তারস্ত্রী ও সন্তান রয়েছে। তারপরেও রংপুর বেসরকারি প্রাইম মেডিকেল ও কলেজের নার্স কোর্সের ছাত্রী শাহীনাকে ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি করে টাকা হাতিয়ে নেয়। এক পর্যায়ে তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। তাকে বিয়ে না করলে চাকরি হবে না বলে ভয়ভীতিও দেখায়। 

 

গত বছর শাহীনা জাহাঙ্গীর আলমকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর শহরের শাপলা মিল সংলগ্ন এলাকায় বাড়ি ভাড়া করে স্ত্রী শাহীনাকে রেখে দেয় জাহাঙ্গীর ।

 

মাঝে মাঝে সেই বাড়িতে আসতো জাহাঙ্গীর। ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর এলাকায় মাদকাসক্ত হিসেবে সবার কাছে পরিচিত। তাই প্রতিদিনেই মাদকের টাকা লাগতো। টাকা না থাকলেই স্ত্রী শাহীনাকে মারপিট করতো। বাধ্য হয়ে শাহীনা তার পিতার বাড়ি থেকে মাঝে মধ্যেই টাকা এনে স্বামীকে সন্তষ্ট করতো। কিন্তু তাতেও সন্তষ্ট ছিলেন না জাহাঙ্গীর মেম্বার।

 

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে জাহাঙ্গীর শ্বশুরকে ফোন দিয়ে বলে আপনার মেয়ে অসুস্থ দ্রত চলে আসুন। শাহীনার মা এসে শাহীনাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়। তাদের অভিযোগ শাহীনার শরীরের নানা জায়গায় ক্ষতের চিহ্ন রয়েছে। স্বামী জাহাঙ্গীর মেম্বর তাকে হত্যা করে ফাঁসির দড়িতে ঝুলিয়ে রেখেছে। এই ঘটনায় বুধবার (১৫ মে) শাহীনার রড় ভাই আবু জাফর বাদি হয়ে ৩জনকে আসামি করে গাইবান্ধা সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

 

বুধবার বিকেলে ময়নাতদন্ত শেষে শাহীনার মরদেহ বাবার বাড়িতে নিয়ে গেলে শোকের মাতম ওঠে। 

 

অন্যদিকে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মাসুদ রানা জানান, শাহীনা দ্বিতীয় স্ত্রী হওয়ায় সাংসারিক জীবনে প্রায় সময় কলহ লেগেই থাকতো। তার স্বামী শাহীনাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করতো। এই নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে তিনি আত্মহত্যা করেন।


ডিবিসি/ এসএইচ 

আরও পড়ুন