• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১
  • দুপুর ২:২০
ইরান-আজারবাইজান উত্তেজনা

আলোচনার মাধ্যমে সংকট সমাধানে সম্মত দুই দেশ

আলোচনার মাধ্যমে সংকট সমাধানে সম্মত দুই দেশ
ইসরাইলের সামরিক বাহিনী আজারবাইজানে সক্রিয় রয়েছে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে দেশটির সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্কের অবনতি হয় তেহরানের। তবে আলোচনার মাধ্যমে এই সংকট সমাধানের জন্য সম্মত হয়েছে দুই দেশ।

আলোচনার মাধ্যমে এই সংকট সমাধানের লক্ষ্যে কাজ করতে সম্মতি প্রকাশ করেছে আজারবাইজান। আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এমনটি বলা হয়।

আজারবাইজানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেহুন বায়রামভ ও ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেন আমির-আবদুল্লাহিয়ানের মধ্যে ফোনালাপের পর বুধবার এক বিবৃতিতে এমন তথ্য জানিয়েছে আজারবাইজানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, 'দুই দেশই সাম্প্রতিক ঘটনাগুলো পর্যবেক্ষণ করেছে, এই সংকট উভয় দেশের জন্য ক্ষতিকর। আমাদের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের সাথে এটি কোনভাবেই সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। আলোচনার মাধ্যমে এই সংকটের সমাধান প্রয়োজন।' এসময় তারা দুই দেশের আঞ্চলিক অখণ্ডতা এবং সার্বভৌমত্বের নীতিকে সম্মান করার ওপরও গুরুত্বারোপ করেন।

উত্তেজনা নিরসনে উভয় পক্ষই আলোচনার ওপর জোর দিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও।

এর আগে, চলতি মাসের শুরুতে আজারবাইজান সীমান্তে বড় ধরনের সামরিক মহড়া চালায় ইরানের সামরিক বাহিনী। ইসরায়েলের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক নিয়ে চলমান উত্তেজনার মধ্যেই এমন মহড়া প্রতিবেশী দেশ আজারবাইজানের সাথে বৈরিতা আরও বৃদ্ধি করে। সেসময় তেহরানের পক্ষ থেকে বলা হয়, আজারবাইজান-ইরান সীমান্তে ইসরায়েল এবং আইএসআইএল এর উপস্থিতি নিয়ে তেহরান উদ্বিগ্ন।

এর আগে বাকুতে আজারবাইজান, তুরস্ক এবং পাকিস্তান তিন জাতি সামরিক মহড়া পরিচালনার পরপরই গেল মাসে ইরানের ইসলামি রেভ্যুলেশনারি গার্ড আজারবাইজান সীমান্ত এলাকায় সেনা উপস্থিতি এবং সামরিক সারঞ্জাম বৃদ্ধি করে।

এদিকে গত বছর আর্মেনিয়া-আজারবাইজান এর মধ্যকার ৪৪ দিনের যুদ্ধে ইসরায়েল সামরিক অস্ত্র দিয়ে আজারবাইজানকে সহায়তা করেছিল বলে বারবার অভিযোগ করে আসছে ইরান।

ডেস্ক
ডিবিসি নিউজ
প্রকাশিতঃ ১৩ই অক্টোবর, ২০২১


সর্বশেষ

আরও পড়ুন