• বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১
  • সকাল ৫:৩৯

এশীয়-বংশোদ্ভূতদের রক্ষার জন্য আইন পাশে বাধ্য হলো মার্কিন সিনেট

এশীয়-বংশোদ্ভূতদের রক্ষার জন্য আইন পাশে বাধ্য হলো মার্কিন সিনেট
আমেরিকায় এশীয়-বংশোদ্ভূত নাগরিকদের ওপর হামলা ও ঘৃণাসূচক অপরাধ আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ায় মার্কিন পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেট একটি আইন পাস করতে বাধ্য হয়েছে।

নিউ ইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, স্থানীয় সময় শুক্রবার সিনেটে ৯৪ সদস্যের ভোটে একটি বিল পাস হয় যাতে এশীয়-বংশোদ্ভূতদেরকে সহিংসতার হাত থেকে রক্ষা করতে বলা হয়েছে।

মার্কিন সিনেটে ডেমোক্র্যাট দলীয় নেতা চাক শুমের দাবি করেছেন, “এই আইন পাস হওয়ার মাধ্যমে সিনেট এ বিষয়টি স্পষ্ট করে দিয়েছে যে, যেকোনো জাতি বা বর্ণের মানুষের বিরুদ্ধে ঘৃণা ও বৈষম্যের কোনো স্থান আমেরিকায় নেই। এই সিনিয়র মার্কিন সিনেটর আরো বলেন, “এই বিল পাসের মাধ্যমে আমেরিকার এশীয়-বংশোদ্ভূত নাগরিকদের এই বার্তা দেয়া হয়েছে যে, তাদের সরকার তাদের প্রতি যত্নশীল এবং তাদের উদ্বেগের স্থানটিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে।”

আইনে পরিণত করার লক্ষ্যে বিলটিকে প্রতিনিধি পরিষদেও পাস করতে হবে। এই পরিষদের স্পিকার ন্যানসি পেলোসি বলেছেন, আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে এই বিলের ওপর প্রতিনিধি পরিষদে ভোটাভুটি হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক শহরে এশীয়-বংশোদ্ভূতদের ওপর হামলা বেড়েই চলেছে। সর্বশেষ গত ১৭ মার্চ নিউ ইয়র্ক শহরের লং আইল্যান্ড এলাকায় ঘৃণাসূচক হামলার শিকার হন ২১ বছর বয়সি পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত নারী নাফিয়া ইকরাম। 

এর আগে, গত ফেব্রুয়ারি মাসে ৩৬ বছর বয়সি এশীয় বংশোদ্ভূত এক ব্যক্তিকে ছুরিকাঘাত করা হয়। এসব ঘটনার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে মার্কিন সরকারের প্রতি আহ্বান জানান এশীয় কমিউনিটির পক্ষে কাজ করা ব্যক্তিবর্গ। এশীয়-আমেরিকান ও এশীয় বংশোদ্ভূতদের ওপর হামলা শুধু নিউইয়র্কের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়; সম্প্রতি ক্যালিফোর্নিয়ার সানফ্রান্সিসকো বে এরিয়াসহ বেশ কিছু শহরে এশীয়-আমেরিকানদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।

নিউ ইয়র্ক সিটি পুলিশ ডিপার্টমেন্টের (এনওয়াইপিডি) তথ্য অনুযায়ী, গত বছর নিউ ইয়র্কে জাতিগতভাবে অনুপ্রাণিত অপরাধের ঘটনা ঘটেছে ২৯টি। এর মধ্যে ২৪টি ছিল করোনা ভাইরাস-সংক্রান্ত কারণে উদ্ভূত ঘৃণাসূচক অপরাধ। ২০১৯ সালে শহরটিতে জাতিগতভাবে অনুপ্রাণিত অপরাধের সংখ্যা ছিল তিন।

ডেস্ক
ডিবিসি নিউজ
প্রকাশিতঃ ২৫শে এপ্রিল, ২০২১


সর্বশেষ

আরও পড়ুন