• শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০
  • দুপুর ১০:২৩

করোনা মোকাবিলায় কেন্দ্রে থেকে ১,৫০০ কোটি টাকার প্যাকেজ চাইলেন মমতা

করোনা মোকাবিলায় কেন্দ্রে থেকে ১,৫০০ কোটি টাকার প্যাকেজ চাইলেন মমতা
করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া রুখতে দেশজুড়ে ২১দিনের লকডাউন জারি করেছেন ভারত সরকার। পরিস্থিতি মোকাবিলায় কেন্দ্রের থেকে ১৫০০ কোটি টাকার প্যাকেজের দাবি জানালেন পশ্চিম বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেন্দ্র থেকে এখনও কোনও সাহায্য আসেনি বলেও উল্লেখ করেন তিনি ।

মঙ্গলবার গোটা দেশে ২১ দিনের জন্য লকডাউন ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় কেন্দ্র থেকে এখনও কোনও সাহায্য আসেনি পশ্চিমবঙ্গে উল্লেখ করে বুধবার প্রাথমিক ভাবে দেড় হাজার কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজের দাবি জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মমতা বলেন, ২১শে জানুয়ারি দেশে করোনা-পরিস্থিতির সূচনা হয়। কিন্তু কেন্দ্র সংশ্লিষ্ট বিষয়ে রাজ্যে পরামর্শ পাঠায় কিছুটা দেরিতে। ফলে করোনা মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় সামগ্রী তালিকা দিতে দেরি হয়। কিন্তু বার বার বলার পরেও কেন্দ্র থেকে রাজ্য এখনও তেমন সহযোগিতা পায়নি বলেও আক্ষেপ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ঋণ পরিশোধ বাবদ ৫০ হাজার কোটি টাকা খরচ করার পরেও করোনা মোকাবিলায় ২০০ কোটি টাকার তহবিল তৈরি করতে হয়েছে রাজ্যকে। অসংগঠিত শ্রমিকদের এককালীন অর্থসাহায্য, অঙ্গনওয়াড়ি এবং মিড-ডে মিল উপভোক্তাদের চাল-আলু, খাদ্যসাথীর আওতায় উপভোক্তাদের ছ’মাস নিখরচায় পাঁচ কেজি করে চাল-গম দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে সরকারকে। ফলে আর্থিক দিক থেকে খুবই সমস্যায় পড়েছে পশ্চিমবঙ্গ। এই পরিস্থিতিতে করোনা মোকাবিলা খাতে আর্থিক প্যাকেজ দাবি করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। খাদ্যদ্রব্য, অসংগঠিত ক্ষেত্র এবং স্বাস্থ্য খাতে বিশেষ প্যাকেজ দেওয়া উচিত বলেও দাবি করেছেন মমতা।

মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, 'ভাঁড়ার প্রায় শূন্য। ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ। অর্থনৈতিক বিপর্যয় চলছে। এই পরিস্থিতিতে ঋণ মওকুফ চেয়েছি। করোনা-প্রভাবিত সব রাজ্যকেই আর্থিক প্যাকেজ দেওয়া উচিত। বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গকে। কারণ তার জনসংখ্যা, ভৌগোলিক অবস্থান গুরুত্বপূর্ণ। দেড় হাজার কোটি টাকা এখনই চেয়েছি। ঋণ মওকুফ করলে খুশি হব। এই মর্মে সর্বদলীয় প্রস্তাবও পাঠিয়েছি প্রধানমন্ত্রীকে।'

ডেস্ক
ডিবিসি নিউজ
প্রকাশিতঃ ২৬শে মার্চ, ২০২০
আপডেটঃ বৃহঃস্পতিবার, ২রা জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৫৮


সর্বশেষ

আরও পড়ুন