• শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০
  • দুপুর ২:৫৭

জেল ভেঙ্গে পালাল মালালা হামলায় সাজাপ্রাপ্ত জঙ্গি নেতা

জেল ভেঙ্গে পালাল মালালা হামলায় সাজাপ্রাপ্ত জঙ্গি নেতা
মালালা ইউসুফজাইকে লক্ষ্য করে গুলি চালান মামলায় সাজাপ্রাপ্ত সাবেক তালিবান নেতা এহসানউল্লাহ এহসান জেল ভেঙ্গে পালিয়েছেন। ২০১৪ সালে পেশোয়ারের সেনা স্কুলে হামলান ঘটনায়ও জড়িত ছিল এহসানউল্লাহ এহসান। দ্যা নিউ ইয়র্ক টাইমন জানায়।

বৃহস্পতিবার একটি অডিও ক্লিপ প্রকাশ্যে এসেছে। তাতে শোনা গেছে, এহসান বলছে পাক নিরাপত্তা বাহিনীর বিশেষ জেলখানা থেকে গত ১১ই জানুয়ারি পালিয়েছে সে। কারণও ব্যাখ্যা করেছে। ২০১৭ সালে প্রশাসনের কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল এহসান। সে সময়ে তাকে কিছু প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল। এহসানের অভিযোগ, কথা রাখেনি সরকার। অডিও ক্লিপে এহসানকে বলতে শোনা গিয়েছে,‘ঈশ্বরের কৃপায় ১১ই জানুয়ারি আমি জেল ভেঙ্গে পালাতে সফল হয়েছি।' এহসান এখন কোথায় রয়েছে, তা অবশ্য জানায়নি। তবে বলেছে, খুব শীঘ্রই ভবিষ্যত পরিকল্পনা জানাবে সে।

এহসানের দাবি, তাকে প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল তিন বছরের মধ্যে ছেড়ে দেওয়া হবে। অডিও ক্লিপে সে আরও জানায়, 'আমাকে বলা হয়েছিল তিন বছর জেলে রাখা হবে। কিন্তু এ দেশের প্রশাসন চুক্তি ভেঙে আমাকে ও আমার সন্তানদের জেলে বন্দি করে রেখেছিল সময় পেরনোর পরেও। তাতেই পালানোর সিদ্ধান্ত।'   

নারী-শিক্ষার প্রচার করার অপরাধে ২০১২ সালে মালালাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় এহসান।  সে দিনের ১৪ বছর বয়সী কিশোরী এখন নোবেল পুরস্কার জয়ী ২২ বছরের তরুণী। ২০১৪ সালের ১৬ই ডিসেম্বর পেশোয়ারের আর্মি পাবলিক স্কুলে হামলায় জড়িত ছিল এহসান। ১৪৯ জন নিহত হয় ওই হামলায়। 

প্রসঙ্গত, পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকার মেয়ে মালালা ইউসুফজাইয়ের জন্ম ১৯৯৭ সালের ১২ই জুলাই। ১১ বছর বয়স থেকে নারীশিক্ষার পক্ষে পাকিস্তানে ব্লগ লেখা শুরু করেছিলেন মালালা। যার পরিণাম হয়েছিল খুবই ভয়াবহ। ২০১২ সালের ৯ই অক্টোবর সোয়াত উপত্যকার মিনগোরাত এলাকায় ১৪ বছর বয়সী মালালা ও তার দুই বান্ধবীকে স্কুলের সামনেই গুলি করে তালেবান জঙ্গিরা।

ডেস্ক
ডিবিসি নিউজ
প্রকাশিতঃ ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০
আপডেটঃ শুক্রবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ১২:১১


সর্বশেষ

আরও পড়ুন