• বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯
  • রাত ১:৩৭

নদীতে খাঁচায় চাষকৃত মাছ মরে পানিতে ভেসে উঠেছে

নদীতে খাঁচায় চাষকৃত মাছ মরে পানিতে ভেসে উঠেছে
চাঁদপুরের ডাকাতিয়া নদীতে খাঁচায় চাষকৃত মাছে মড়ক দেখা দিয়েছে। গত ৩ দিনে প্রায় ৮ কোটি টাকার মাছ মরে গেছে বলে জানান মাছ চাষীরা।

শুধু খাঁচার চাষকৃত মাছই নয়, ডাকাতিয়া নদীর মাছও মরে পানিতে ভেসে উঠতে দেখা গেছে। কি কারণে নদীর পানিতে মাছ মরে ভেসে উঠছে তা পরীক্ষা করার জন্য কাজ শুরু করেছে চাঁদপুর মৎস্য বিভাগ।
চাঁদপুর মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, শহরের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ডাকাতিয়া নদীতে ২০০২ সাল থেকে খাঁচায় মাছ চাষ শুরু হয়। বর্তমানে শহরের নতুনবাজার-পুরানবাজার সেতু থেকে গাছতলা চাঁদপুর সেতু পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার এলাকায় ডাকাতিয়া নদীতে আড়াই হাজার ভাসমান খাঁচায় চাষ করছে। এই কাজের সাথে জড়িত রয়েছে আড়াই শতাধিক জেলে।

ক্ষতিগ্রস্থ মাছচাষী মো. তাজুল ইসলাম গাজী বলেন, ডাকাতিয়া নদীতে আমার ৮টি খাঁচা রয়েছে। এসব ভাসমায় খাঁচায় তেলামিয়া, রইম কাতল মাছ চাষ করছি। গত কয়েকদিনে হঠাৎ মাছে মড়ক দেখা দেয়ায় সব মাছ মরে ভেসে উঠছে। কি কারণে হচ্ছে, তা বলতে পারছি না। এতে আমরা আর্থিকভাবে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি।

 

মৎস্য চাষে জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত সোহেল গাজী জানায়, প্রতিবছরই প্রতিটি খাঁচা থেকে স্বল্প সংখক মাছ মারা গেলেও গত ৬ অক্টোবর থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় শহরের পুরানবাজার সেতু হতে চাঁদপুর সেতু পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার ডাকাতিয়া নদীতে ভাসমান চাষকৃত আড়াই হাজার খাঁচার শত শত মণ মাছ মরে ভেসে উঠছে। দীর্ঘদিন মাছ চাষ করলেও এই ধরনের মাছ মোড়ক দেখেনি। পানি দুষণ নাকি অন্য কোন কারণে তাদের মাছগুলো মরে যাচ্ছে, তা বলতে পারছি না।

চাঁদপুর ডাকাতিয়া নদীতে ভাসমান খাঁচায় মাষ চাষ সমিতির সভাপতি মো. আলমগীর মিয়াজী বলেন, কয়েকদিন যাবত মাছ মরা শুরু হলেও মঙ্গলবার বেশি পরিমাণ মাছ মরে ভেসে উঠতে শুরু করে। খাঁচায় চাষকৃত মাছ তেলাপিয়া, রই কাতল, মৃগেলসহ ডাকাতিয়া নদীর মাছ বাইম, আইড়, কালবাউস মাছও মরে পানিতে ভেসে উঠছে। কি কারণে হঠাৎ মাছ মরে ভেসে উঠছে তা আমরা বলতে পারছি না। মাছ মরে ভেসে উঠায় মাছ চাষীরা আর্থিকভাবে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

তিনি জানান, চাঁদপুরের খাঁচায় মাছ চাষে আড়াইশ’ জন চাষী রয়েছেন। তাদের এই মৎস্য খামার কাজে চার শতাধিক শ্রমিক জড়িত রয়েছে। নদীতে মড়ক লাগায় এই কাজে জড়িত জেলে ও শ্রমিকরা এখন বেকার হওয়ার পথে।

চাঁদপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আসাদুল বাকি বলেন, নদীতে মাছ মরার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি খাঁচায় চাষকৃত মাছ ও নদীর অনেক মাছ মরে পানিতে ভেসে রয়েছে। এতে মাছচাষীদের আনুমানিক ৫ কোটি টাকার মত ক্ষতি হয়েছে। প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে পানিতে অ্যামোনিয়া, পিএইচ ও অক্সিজেনের পরিমান ক্ষতিকর মাত্রায় রয়েছে। আমরা মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বৈজ্ঞানিকদের জানিয়েছে। তারা এসে পানি, মাটি ও মরা মাছ পরীক্ষা করে রিপোর্ট দিলে প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, খাঁচায় মাছ চাষের পাশে নদীতে অবৈধভাবে ‘ঝাঁক’ তৈরি করার কারণে কচুরিপানার জটলা সৃষ্টি হয়। তখন পানির অক্সিজেন ক্ষমতা কমে যায়। ‘ঝাঁক’ দিয়ে মাছ ধরতে গিয়ে ‘বিষ’ দেয়ায় ‘খাঁচায় মাছচাষে’ প্রভাব পড়তে পারে। এ কারণে হয়তো খাঁচায় তেলাপিয়া চাষ ‘অক্সিজেন’ সংকটে মারা যেতে পারে।
তিনি আরো বলেন, এছাড়া চাঁদপুরে ডাকাতিয়া নদীতীরে দুটি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র থাকায় সেখানকার কেমিক্যাল মিশ্রিত পানির প্রভাবেও ‘মাছ মারা’ যাচ্ছে কিনা সেটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা হবে।

ডেস্ক
ডিবিসি নিউজ
প্রকাশিতঃ ৮ই অক্টোবর, ২০১৯
আপডেটঃ মঙ্গলবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ০৪:১০


সর্বশেষ

আরও পড়ুন