• শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১
  • সকাল ৭:০৩

'বিশ্বশান্তি সুসংহত করতে বাংলাদেশ সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ'

বিশ্ব শান্তি সুসংহত করতে বাংলাদেশ সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, এমনটি জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার (১২ এপ্রিল) টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেনানিবাসে  জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত বহুজাতিক সামরিক অনুশীলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে যোগ দিয়ে একথা জানান তিনি।

বঙ্গবন্ধুর শান্তি দর্শনকে সমুন্নত করে এই বহুজাতিক অনুশীলনটি আয়োজন করা হয়। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশগ্রহণকারী দেশ সমূহের শান্তিরক্ষীদের সক্ষমতা বৃদ্ধি ছিলো এই অনুশীলনের মূল উদ্দেশ্য। এই অনুশীলনে সামরিক অপারেশন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ ব্যক্তিবর্গের আলোচনা ও বিভিন্ন প্রকার প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে এই অনুশীলন অনুষ্ঠানে যে সকল দেশ অংশ নিয়েছে, তাদের সবার সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক এক নতুন মাত্রা পেলো

এসময় প্রধানমন্ত্রী জানান, বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠা এখন আগের সময়ের চেয়ে অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে পররাষ্ট্রনীতি গ্রহণ করেছিলেন। সকলের সাথে বন্ধুত্ব কারো সাথে বৈরিতা নয়; সেই আদর্শ ও নীতি অনুসরণ করেই আমরা আমাদের পররাষ্ট্রনীতি সাজিয়েছি। এই নীতি অনুসরণ করে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

সামরিক বাহিনীর সক্ষমতা যাচাইয়ে নিয়মিত অনুশীলন জরুরি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, চলমান বিশ্বে প্রযুক্তির প্রসার ও অগ্রযাত্রার সাথে সাথে রাষ্ট্রীয় এবং অরাষ্ট্রীয় শক্তিসমূহ বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় নতুন মাত্রার চ্যালেঞ্জ হিসেবে উপস্থিত হয়েছে। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় শান্তিরক্ষীদের উপযুক্ত প্রশিক্ষণ ও সরঞ্জামাদি দিয়ে প্রস্তুত করার ব্যাপারে বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী। পেশাদার, প্রশিক্ষিত সামরিক বাহিনীর গঠনের জন্য কাজ করে যাচ্ছে সরকার। জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী মিশনে বাংলাদেশের সশস্ত্রবাহিনী দক্ষতার সাথে কাজ করে জাতিসংঘের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল রেখেছে। বিশ্ব শান্তি সুসংহত রাখতে কাজ চলমান আছে বলেও জানান তিনি। ভবিষ্যৎ শান্তিরক্ষীদের জন্য জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন সমূহে বর্তমানে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে উপযুক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে বাস্তবমুখী এই অনুশীলন বিশেষ সহায়ক হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। 

করোনা মহামারির সময়ে অর্থনীতিকে গতিশীল রাখতে সব ধরনের ব্যবস্থা করা হয়েছে জানিয়ে সবাইকে আবারো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানটিতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক ব্যবহৃত অত্যাধুনিক অস্ত্র-সরঞ্জামাদি ও মিলিটারি গেজেটসমূহ সমরাস্ত্র প্রদর্শনীর মাধ্যমে সকলের সামনে উপস্থাপন করা হয়। এছাড়াও জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নারী সদস্যদের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরা হয়।

উল্লেখ্য, বহুজাতিক এই সামরিক অনুশীলনে বাংলাদেশ, ভারত ও শ্রীলংকা হতে ৩০ জন করে এবং ভুটান হতে ৩৩ জনসহ মোট ১২৩ জন সেনা সদস্য অংশগ্রহণ করেন। এছাড়াও অনুশীলনে  উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, নেপাল, তুরস্ক, সৌদি আরব, ভারত, শ্রীলঙ্কা ও ভুটানের মোট ১২ জন পর্যবেক্ষক।

ডেস্ক
ডিবিসি নিউজ
প্রকাশিতঃ ১২ই এপ্রিল, ২০২১


সর্বশেষ

ঘটনাপ্রবাহ বিশ্লেষণঃ

আরও পড়ুন