• শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১
  • সকাল ৬:৪২

মিষ্টার বাংলাদেশ খেতাব প্রাপ্ত রতন পাল ভালো নেই

মিষ্টার বাংলাদেশ খেতাব প্রাপ্ত রতন পাল ভালো নেই
আশির দশকের মিষ্টার বাংলাদেশ খ্যাত কুষ্টিয়ার ভারত্তোলক রতন কুমার পাল ভালো নেই, ধুঁকছেন অসুস্থতায়, চিকিৎসা থেমেছে অর্থাভাবে।

একসময় তার ফিটনেস, স্কিল আর পারফরমেন্সে মুগ্ধ হয়েছে দর্শক, এখন নিজের আর পরিবারের জীবন চালানো নিয়ে অন্যের মুখাপেক্ষী তিনি। একসময়ের দেশসেরা অ্যাথলেট সহযোগিতা চাইছেন রাষ্ট্রের।

১৯৮১ থেকে ২০০০ সাল, টানা ২০ বছর ভারত্তোলনের প্ল্যাটফর্মে রাজত্ব ছিল রতন কুমার পালের। দুই দশকের এই সময়ে জাতীয় পর্যায়ের ভারত্তোলন প্রতিযোগিতায় ১৬টি সোনা, ৩১টি রূপা ও ১২টি ব্রোঞ্জ পদক উঠেছে তার গলায়। রতন কুমার পালের ঝুলিতে রয়েছে আটটি জাতীয় রেকর্ডও। এছাড়া আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তিনি পেয়েছেন দুটি পদক। ১৯৮১ সালে তিনি মিষ্টার বাংলাদেশ খেতাব পান।

সাবেক তারকা ভারত্তোলক রতন কুমার পাল বলেন, 'প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ, মুজিববর্ষে আপনি অনেকের অনেককিছু করেছেন, আমার যাতে চিকিৎসাটা ভালো হয় সে বিষয়ে একটু পদক্ষেপ নেবেন।'

অ্যাথলেটদের সাফল্যের উল্টোপিঠেই থাকে ইনজুরির শঙ্কা। ব্যতিক্রম হয়নি রতন কুমারের বেলায়ও। ভারোত্তলনের কারণেই  হাঁটুর হাড় ক্ষয়ে যায় তার, বিপুল অর্থ ব্যয়ে কৃত্রিম হাঁটু সংযোজন করিয়েছেন অনেকদিন আগেই। তারকা জীবনের পরেই নানান রোগ বাসা বাধে তার শরীরে। এখন আর ঠিকমত কথাও বলতে পারেননা।

রতন পালের স্ত্রী যুথিকা রানী পাল বলেন, 'সে একজন আন্তর্জাতিক ভারত্তোলক। আজ ২০ বছর ধরে কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছে কিছু করতে পারেনা।'

নিজে লাঠির সাহায্যে চলতে পারলেও থেমে গেছে পরিবারের রোজগার। এমন দুর্দিনে তাই সরকারিভাবে রতন পালকে পৃষ্টপোষকতা করার আহবান পরিবার,প্রতিবেশি ও স্থানীয় অ্যাথলেটদের। জেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকে অর্থ সহয়তা দেয়া হলেও প্রয়োজেনের তুলনায় তা সামান্য। 

ডেস্ক
ডিবিসি নিউজ
প্রকাশিতঃ ৩রা এপ্রিল, ২০২১


সর্বশেষ

আরও পড়ুন