• শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯
  • রাত ৯:২০

স্মার্টফোনের হোমস্ক্রিন গুছানো রাখবেন যেভাবে…

স্মার্টফোনের হোমস্ক্রিন গুছানো রাখবেন যেভাবে…
স্মার্টফোন এখন জীবনের একটা গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে তাতে সন্দেহ নেই। স্মার্টফোনের এতো সব কাজের অ্যাপের ভিড়ে হোমস্ক্রিন গুছিয়ে রাখবেন কীভাবে?

স্মার্টফোন এখন জীবনের একটা গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে তাতে সন্দেহ নেই। সকালে ফোনের অ্যালার্মে ঘুম ভাঙা থেকে শুরু করে ইমেইলের ইনবক্স চেক করা, কোন রাস্তায় যানজট কেমন দেখা, যানজটে বসে বসে গান শোনা, দু’একটা নাটক-সিনেমা দেখে ফেলা, কোনো বইয়ের কিছু অংশ পড়ে ফেলা, তারপরেও জ্যামে বসে থেকে বিরক্ত হয়ে সেলফি তোলা, সেই সেলফি ইন্সটাগ্রাম, ফেসবুকে আপলোড করা, অফিসের জরুরি ফোন, মেইল, টেক্সটের উত্তর দেয়া থেকে শুরু করে সময়মতো খাবার খাওয়া, ওষুধ খাওয়ার কথা মনে করিয়ে দেয়া, সেলফির নিচে পড়া মন্তব্যের প্রত্যুত্তর দেয়া … এক দণ্ডও বিশ্রাম নেই যেন ফোন থেকে!

এতো কাজের কাজি যেই ফোন তাতে অগুণতি অ্যাপ্লিকেশান ইন্সটল করা থাকবে, আর সেইসব অ্যাপের নোটিফিকেশান এসে হোম স্ক্রিন ভরে থাকবে, এতো খুবই সাধারণ ঘটনা। আর এতো সব কাজের অ্যাপের ভিড়ে কিছু অ্যাপ তো থাকবেই যেগুলো ইন্সটল করা ঠিকই হবে, কিন্তু এরপর সারাজীবনেও আর কখনও অ্যাপখানা খুলে আর দেখা হবে না।

এইসব অ্যাপের ভিড়ে দরকারি অ্যাপটা খুজেঁ নিতে বার বার ফোনের স্ক্রিন সোয়াইপ করাও এক হ্যাঁপা বটে। এমন অবস্থায় স্মার্টফোনটার হোমস্ক্রিনটাকে একটু গুছিয়ে নেয়াটা যেন জীবনটাকে সহজ করার জন্যই বেশ জরুরি! কিন্তু কোন অ্যাপটা জরুরি, কোনটা রাখবেন, কোনটা ফেলবেন- সিদ্ধান্ত নিতেই তো গলদঘর্ম অবস্থা! স্মার্টফোনের গুছিয়ে রাখার জন্য যেভাবে অ্যাপ বাছাই করতে পারেন তার কিছু উপায়ই দেয়া হলো এখানে।

১. ‘থিম’ অনুযায়ী রাখুন অ্যাপগুলোকে

একই ধরনের কাজের জন্য অ্যাপগুলোকে একসঙ্গে রাখলে হোমস্ক্রিন গুছানো থাকবে। আলাদা ফোল্ডারে একই ধরনের অ্যাপগুলোতে রাখুন। আলাদা ফোল্ডারে সোশ্যাল মিডিয়াগুলো অ্যাপগুলো, ব্যাংকিং বিষয়ক অ্যাপগুলো, খবরের অ্যাপগুলো, স্পোর্টস বিষয়ক অ্যাপগুলো, স্বাস্থ্য বিষয়ক অ্যাপগুলো, গেমগুলো সরিয়ে ফেলুন। এতে আপনার হোমস্ক্রিন গুছানো থাকবে, একইসঙ্গে হোমস্ক্রিনে যুক্ত হতে থাকা পেইজের সংখ্যা কমে আসবে।

২. সবচেয়ে দরকারি অ্যাপটি রাখুন সবার নিচে

সাধারণতঃ হাতের বুড়ো আঙুলের কাছে থাকা অ্যাপগুলোতে বেশি ট্যাপ করা বেশি সহজ বলে সেগুলোই বেশি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তাই সবচেয়ে দরকারি অ্যাপগুলো রাখুন হোমস্ক্রিনে সবচেয়ে নিচে, বুড়ো আঙুলের কাছাকাছি। আর সবচেয়ে কম দরকারি অ্যাপটিকে রাখুন সবচেয়ে শেষের হোমপেইজের সবচেয়ে উপরের কোণায়।

৩. পাসওয়ার্ড ম্যানেজার ডাউনলোড করে নিন

সব অ্যাপে একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা নিরাপদ নয়, আবার এতো সব অ্যাপের সব পাসওয়ার্ড মনে রাখাও কঠিন বটে। পাসওয়ার্ড ম্যানেজার আপনার সবগুলো পাসওয়ার্ড মনে রাখার সঙ্গে সঙ্গে সেগুলোকে এনক্রিপ্টগও করে রাখবে যেন আপনি কোনো ফ্রডের মুখে না পড়েন। এতে আপনার পাসওয়ার্ডগুলোর সঙ্গে সঙ্গে আপনার ফোনের হোমস্ক্রিনও গুছানো থাকবে।

৪. অ্যাপ ড্রয়ারের দিকে খেয়াল রাখুন

অ্যাপ ড্রয়ার হলো হোমস্ক্রিনের প্রথম পাতার নিচে স্থায়ীভাবে থাকা অ্যাপের সারি। আগেই বলা হয়েছে সবচেয়ে জরুরি ও বেশি ব্যবহৃত অ্যাপটি হোমস্ক্রিনের নিচের দিকে রাখা ভালো। তাই অ্যাপড্রয়ারে এগুলো রাখাটা ভালো সিদ্ধান্ত। তবে অ্যাপড্রয়ারে রাখা অ্যাপগুলো দরকার অনুযায়ী বদলে ফেলার দিকে খেয়াল রাখলে হোমস্ক্রিন পরিষ্কার থাকবে।

৫. মাঝে মাঝে ঝাড়পোছ করুন ইনবক্স আর অ্যাপগুলো

মাঝেমধ্যে পুরো ফোনে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালান। যে অ্যাপগুলো একেবারেই ব্যবহার করা হয় না সেগুলো আনইন্সটল করে ডিলিট করুন। ইনবক্সেও চালান পরিচ্ছন্নতা অভিযান। পুরনো অদরকারি মেইল ও টেক্সট ম্যাসেজ মুছে ফেলুন। কন্টাক্ট লিস্টও পরীক্ষা করে দেখুন, অদরকারি কন্টাক্টগুলো ফেলে দিন। এতে শুধু যে ফোন গুছানো হবে তা-ই না, মেমোরি স্পেসও বাড়বে। গ্যালারি থেকে কিছু ছবিও ফেলে দিতে পারেন, কারণ গ্যালারিতেই সবচেয়ে বেশি অদরকারি জিনিস থেকে যায় শেষ পর্যন্ত!

 

ডেস্ক
কাজী শাহরিন হক
ডিবিসি নিউজ
প্রকাশিতঃ ২রা নভেম্বর, ২০১৯
আপডেটঃ বৃহঃস্পতিবার, ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫০


সর্বশেষ

আরও পড়ুন