• বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১
  • সকাল ৮:১৪

২০১৬ সালের পর ইবোলায় গিনিতে তিনজনের মৃত্যু

২০১৬ সালের পর ইবোলায় গিনিতে তিনজনের মৃত্যু
পশ্চিম আফ্রিকার দেশ গিনিতে ইবোলা ভাইরাস সংক্রমণে কমপক্ষে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। ২০১৬ সালের পর এই প্রথম দেশটিতে ইবোলা ভাইরাসের সংক্রমণে মৃত্যুর ঘটনা ঘটল।
মানচিত্র

দেশটির স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলছেন, পাঁচজনের শরীরে ইবোলা ভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে। একটি শেষকৃত্যের অনুষ্ঠান থেকে ফেরার পর আক্রান্ত ব্যক্তিদের ডায়রিয়া, বমি ও রক্তক্ষরণ শুরু হয়।

গিনির জাতীয় স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান সাকোবা কেইতা বলেন, দক্ষিণ-পূর্ব অঞ্চলের পরিস্থিতি নিশ্চিত করতে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। শনাক্ত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে তাদের আলাদা করা হচ্ছে।

২০১৩ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত পশ্চিম আফ্রিকায় ইবোলা মহামারিতে ১১ হাজারের বেশি মানুষ মারা যায়। এ ভাইরাসের উদ্ভব হয়েছিল গিনি থেকে। ২০১৪ সালে আতঙ্কের নাম হয়ে দাঁড়ায় ইবোলা ভাইরাস। এই ভাইরাস গিনি, লাইবেরিয়া, সিয়েরা লিয়নসহ কয়েকটি দেশে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ে।

১৯৭৬ সালে প্রথম শনাক্ত হয় ইবোলা ভাইরাস। মধ্য আফ্রিকার ইবোলা নদীর তীরে প্রথম সংক্রমণ ঘটে বলে নদীটির নামেই ভাইরাসটির নামকরণ হয়। ইংরেজিতে রোগটির নাম দেওয়া হয়েছে ইবোলা ভাইরাস ডিজিজ বা ইভিডি। বলা হচ্ছে, বাদুড়ের খাওয়া ফল থেকে এ ভাইরাস মানুষের দেহে প্রথম প্রবেশ করে। পরে তা মানুষ থেকে মানুষে ছড়াতে শুরু করে। দেহ থেকে নিঃসৃত বিভিন্ন তরল থেকে এ রোগ ছড়ায়।

তবে আশার কথা হচ্ছে, গিনির ইবোলা মহামারির পর থেকে বেশ কয়েকটি টিকা তৈরি করা হয়েছে। কঙ্গোতে মহামারি ঠেকাতে এ টিকা ব্যবহার করা হচ্ছে।

ডেস্ক
ডিবিসি নিউজ
প্রকাশিতঃ ১৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২১
আপডেটঃ বুধবার, ৩রা মার্চ, ২০২১ দুপুর ০১:৩৮


সর্বশেষ

সংবাদ সম্প্রসারন

আরও পড়ুন